আট কারণে আজ থেকেই বেশি করে ঘুমান, সুস্থ থাকুন

Spread the love

পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবে আমাদের দেহের নানা সমস্যা হয়। আর ঠিকঠাক ঘুমালে এসব সমস্যার কোনো নামগন্ধও থাকে না। তার পরও আমরা অনেকেই ঠিকঠাক ঘুমাই না। এ লেখায় থাকছে আটটি পয়েন্ট, যা পড়লে পর্যাপ্ত ঘুমের জন্য আপনি উৎসাহিত হতে পারেন।

১. আপনার রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা উন্নত হবে
সাধারণ একজন মানুষের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ঠিকঠাক রাখার জন্য ঘুমের প্রয়োজন রয়েছে। বিভিন্ন গবেষণাতেও এটি প্রমাণিত হয়েছে যে, পর্যাপ্ত ঘুমালে শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো কাজ করে। প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, ঠিকঠাক না ঘুমালে ইনফুয়েঞ্জা ও হেপাটাইটিসের টিকা ভালো কাজ করে না।

২. স্মৃতিশক্তি বাড়বে
মস্তিষ্ক ঠিকঠাক কাজ করার জন্য ঘুমের বিকল্প নেই। গবেষণায় দেখা গেছে, ভালো একটা ঘুমের পর কোনোকিছু শেখা হলে তা সহজেই মনে রাখা যায়। যারা পর্যাপ্ত ঘুমায় না তাদের তুলনায় পর্যাপ্ত ঘুমানো ব্যক্তিদের স্মৃতিশক্তি অনেক ভালো কাজ করে। একই বিষয় কাজ করে সাইকেল চালনা ও গলফ খেলার মতো বিষয়ে। ঘুমালে এসব খেলার ফলাফল ভালো হয়।

৩. মানসিকভাবে ভালো বোধ
পর্যাপ্ত ঘুম হয় না এমন ব্যক্তিরা আবেগগত সমস্যা ও বিষণ্নতায় অনেক বেশি ভুগে থাকেন। ঘুম আবেগগত বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তাই পর্যাপ্ত ঘুম না হলে আবেগগত সমস্যা তৈরি হতে পারে।

৪. মস্তিষ্কের সতেজতা
পর্যাপ্ত ঘুম হলে আপনার মস্তিষ্ক সতেজ বোধ হবে। মস্তিষ্কের ভেতর কোষের নানা সংযোগ স্থাপনে ঘুমের ভূমিকা রয়েছে। ঘুমের সময় মস্তিষ্কের নানা বর্জ্য পদার্থ পরিষ্কার হয়। ফলে ঘুমের ফলে মস্তিষ্ক সতেজ অনুভূতিপ্রাপ্ত হয়।

৫. নতুন কোষ তৈরি ও পুরনো কোষ সংস্কার
ঘুমের সময় মস্তিষ্ক নতুন কোষ তৈরি করে এবং পুরনো কোষগুলো সংস্কার করে। এটি মূলত গভীর বা ‘স্লো-ওয়েভ’ ঘুমের সময় হয়। শিশুদের বৃদ্ধির জন্য এটি বিশেষ প্রয়োজনীয়।

৬. রক্তের চিনির মাত্রা স্থিতিশীল রাখা
ঘুম ঠিকঠাক না হওয়া ব্যক্তিদের মাঝে ডায়াবেটিসের মাত্রা বেশি হয়। এর অন্যতম কারণ ঘুমে ব্যাঘাত ঘটলে তা দেহের ইনসুলিনের প্রতিরোধক্ষমতা তৈরি করে। ফলে ইনসুলিন দেহের কোষগুলোতে পৌঁছাতে পারে না। এ কারণে আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে ঘুমের ওপর অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছে।

৭. ওজন কমানোয় ভূমিকা
দেহে বাড়তি ওজন সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য সবচেয়ে সহজ দাওয়াই হতে পারে ঘুম। পর্যাপ্ত ঘুম আপনার ওজন কমাতে সহায়তা করবে। ঠিকঠাক না ঘুমালে তা আপনার দেহের ওজন বাড়িয়ে দেবে। দেহের হরমোন মাত্রায় গণ্ডগোলের জন্যই এমনটা হয়।

৮. আয়ু বাড়ানোয় অবদান
ঘুম আপনার আয়ু বাড়াতে সহায়তা করবে। বহু গবেষণায় বিষয়টির প্রমাণ পাওয়া গেছে। দেখা গেছে, রাতে যারা সাত ঘণ্টারও কম সময় ঘুমায়, তাদের আয়ু কম হয়। যাদের ঘুম কম হয় তাদের রক্তচাপ বৃদ্ধি, স্ট্রোক, হৃদরোগ ইত্যাদি বেশি হয়। ফলে কম ঘুমানো ব্যক্তিদের গড় আয়ু কম হয়।

আপনার মন্তব্য

Spread the love