জানা-অজানা

জেনে নিন পেঁয়াজের দারুণ কিছু ব্যতিক্রমী ব্যবহার

আমাদের দৈনন্দিন রান্নায় পেঁয়াজ একটি গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ। পেঁয়াজ ছাড়া মজাদার তরকারি রান্নার কথা ভাবাই যায় না। পেঁয়াজকেও তরকারি হিসেবে খাওয়া যায়। আবার তরকারি ছাড়াও সালাদে পেঁয়াজ খাওয়া হয়। কাঁচা পেঁয়াজও অনেকে খেতে পছন্দ করেন। পেঁয়াজের রয়েছে অসাধারণ পুষ্টিগুণ। খ্রিষ্টপূর্ব ৩৫০০ সালের দিকেও মিশরে পেঁয়াজের ভেষজগুনের জন্য ছিলো জনপ্রিয়। পেঁয়াজের রস বাতরোগ সারায়, হৃদরোগের উপকারি এবং যৌন সক্ষমতা বাড়াতে পারে। এ সবই আমরা জানি। এবার জানাতে চাচ্ছি পেঁয়াজের ব্যতিক্রমী কিছু ব্যবহার। আসুন জেনে নেয়া যাক:

১। মশা বা কীটপতঙ্গের কামড় থেকে রক্ষা পেতে:
মশার উৎপাত বা কীটপতঙ্গের উপদ্রব থেকে রক্ষা পেতে পেঁয়াজের রস শরীরের অনাবৃত অংশে মাখিয়ে নিন দেখবেন মশা বা কীটপতঙ্গ কামড়াতে আসছে না।

২। কীটপতঙ্গের কামড়ের ব্যথা দূর করে:
কীট পতঙ্গের কামড়ে অনেক সময় ব্যথা হয়। সেই ব্যথা দূর করতে এক টুকরা পেঁয়াজ ঘষে দিন ব্যথার স্থানে। ব্যথা কমে যাবে।

৩। গলা ব্যথায়:
গলা ব্যথা হলে একটু গরম জলে পেঁয়াজের রস দিয়ে পান করুন অল্প অল্প করে। গলা ব্যথা সেরে যাবে।

৪। পোড়া ব্যথায় উপকারি:
শরীর কোন অংশ পোড়ে গেলে সেখানে পেঁয়াজের রস মেখে দিন। দেখবেন পোড়া স্থানের ব্যথা থাকবে না, জ্বলুনী কমে যাবে।

৫। ধাতুর দাগ দূর করে:
সাধারণত চামচ, দা, ছুরি কিংবা আর আর ধাতব সামগ্রীতে দাগ বসে যায়। এক্ষেত্রে আপনি এক কাজ করতে পারেন- পেঁয়াজ কেটে তা দিয়ে ঘষে তুলে ফেলতে পারেন সেইসব কঠিন দাগ সহজে।

৬। ব্রণ দূর করতে:
সকালে ঘুম থেকে জেগে গালে একটা অস্বাভাবিক ব্রণ দেখতে পাচ্ছেন। সমস্যা নেই। ব্রণের পেঁয়াজের রস মেখে দিন। ব্রণ চলে যাবে।

৭। চুল পড়া কমাতে:
চুল পড়া কমাতে চুলে পেঁয়াজের রস মাখার বিকল্প কিছু হতে পারে না। চুলের গোড়াকে শক্ত করে। তাই চুল পড়া কমে যায় অনেক দ্রুত।

৮। এন্টিব্যাকটেরিয়াল:
পেঁয়াজে রয়েছে এন্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। তাই ফোঁড়া বা ঘা পেঁয়াজ দিয়ে ধুলে তাড়াতাড়ি সেরে যায়।

৯। হিক্কা বা হেঁচকি দূর করতে:
কোন মতেই হেঁচকি ওঠা বন্ধ করতে না পারলে, পেঁয়াজের রস মিশিয়ে জল পান করুন। হেঁচকি বন্ধ হয়ে যাবে।

১০। বমি বন্ধ করে:
বমি বন্ধ করতে হলে কয়েক ফোঁটা পেঁয়াজের রস জলে মিশিয়ে পান করলেই হবে। এতে বমি বন্ধ হয়ে যাবে।

আরও পড়ুন ::

Back to top button