বাংলায় তিন করোনা আক্রান্তের পরীক্ষার রিপোর্ট ফের নেগেটিভ, কাল পাঠানো হতে পারে হোম কোয়ারেন্টাইনে


বাংলায় তিন করোনা আক্রান্তের পরীক্ষার রিপোর্ট ফের নেগেটিভ, কাল পাঠানো হতে পারে হোম কোয়ারেন্টাইনে

 

আরও একটু স্বস্তির খবর মিলল সোমবার রাতে। কলকাতার বাইপাসের বাসিন্দা যিনি প্রথম করোনা আক্রান্ত বিদেশ-ফেরত তরুণ এবং বালিগঞ্জের দ্বিতীয় করোনাভাইরাস আক্রান্ত বিদেশ-ফেরত তরুণ এবং তাঁর বাবার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট ফের নেগেটিভ এল। একাধিক বার টেস্ট করেই এই স্বস্তি মিলেছে বলে স্বাস্থ্য ভবন সূত্রের খবর।

আগামী কাল, মঙ্গলবারই ‘হোম কোয়ারেন্টাইনে’ পাঠিয়ে দেওয়া হতে পারে তাঁদের। অর্থাত্‍ বাড়ি ফিরে, ঘরের ভিতরেই থাকবেন তাঁরা। কলকাতার প্রথম করোনা আক্রান্ত যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল, বিদেশ থেকে ফিরেও নিয়ম না মেনে শহরে চলাফেরা করেছেন তিনি। নবান্নের এক আমলার পুত্র হওয়ায় প্রভাব খাটানোর অভিযোগও উঠেছিল। কোভিড ১৯ ধরা পড়ার পরে বেলেঘাটার আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিত্‍সা চলছিল তাঁর। তাঁর মা-বাবার রিপোর্ট অবশ্য নেগেটিভ আসে প্রথমেই।

এর পরে ধরা পড়া বালিগঞ্জের করোনা-পজ়িটিভ যুবক ছিলেন শহরের দ্বিতীয় আক্রান্ত। জানা গিয়েছিল, প্রথম আক্রান্তের মতো এই যুবকও লন্ডন থেকে শহরে ফিরেছিলেন। তবে ১৩ মার্চ ফেরার সময়ে বিমানবন্দরের থার্মাল স্ক্রিনিংয়ে কোনও উপসর্গই ধরা পড়েনি তাঁর। কয়েক দিন পরে সর্দি-জ্বর দেখা দিলে বেলেঘাটা আইডিতে যান তিনি।


পরীক্ষার জন্য তাঁর লালারস পাঠানো হয় পুণের নাইসেডে। রিপোর্ট আসে পজিটিভ। জানা যায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন যুবক। এর পরেই সমস্ত নিয়ম মেনে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয় এই যুবককেও। সেই সঙ্গে তাঁর সংস্পর্শে এসেছিলেন, এমন ১১ জনকে পর্যবেক্ষণের জন্য পাঠানো হয়েছিল রাজারহাটের আইসোলেশন সেন্টারে। কিন্তু এঁদের মধ্যে তিন জনের শরীরে সন্দেহজনক উপসর্গ দেখা দেয়। তাই দেরি না করে শনিবার ওই তিন জনকে অর্থাত্‍ যুবকের বাবা, মা ও পরিচারিকাকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে স্থানান্তরিত করা হয়।

পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয় নমুনাও। তাঁদের রিপোর্ট আসে পজিটিভ। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই চিন্তা বেড়েছিল চিকিত্‍সকদের। কিন্তু আজকে ওই যুবক এবং তাঁর বাবা, সেই সঙ্গে প্রথম আক্রান্ত যুবক-তিন জনেরই পরীক্ষার রিপোর্ট আবার নেগেটিভ আসায় ও তার পরে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত খানিকটা হলেও স্বস্তি দিয়েছে। ভরসা মিলেছে, চিকিত্‍সায় সেরে উঠছেন আক্রান্তরা।

সুত্র: THE WALL

আপনার মন্তব্য

Recommended For You