কলকাতা

প্রখ্যাত হলেন ক্রীড়া চিত্রসাংবাদিক রনি রায়,মৃত্যুতে শোকার্ত ময়দান !

 

কলকাতা: পুরো নাম রণজয় রায়। কিন্তু ময়দানে সদা হাসিমুখটা পরিচিত ছিল ‘রনি’ নামেই। চিত্রসাংবাদিক হিসেবে আজকালের সঙ্গে সম্পর্ক দীর্ঘ ২৫ বছরের। বয়সের কোনও বেড়াজাল ছিল না। মিশে যেতে পারতেন ছোট-বড় যে কোনও বয়সিদের সঙ্গেই। সকলের আদরের রনি আর নেই। বিশ্বাস করতে পারছে না ময়দান। ময়দানের প্রতিটি ঘাস যাঁর হাতের তালুর মতো চেনা ছিল সেই রনি শুক্রবার বিকেলে ময়দানকে কাঁদিয়ে অসময়ে চলে গেলেন না-ফেরার দেশে।

বিগত কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন ‘আজকাল’ পত্রিকার জনপ্রিয় এই ক্রীড়া সাংবাদিক। ব্লাড সুগারের সমস্যা ছিল বরাবরই। শুক্রবার সকালে হঠাত্‍ই শ্বাসকষ্ট অনুভব করায় তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। চিকিত্‍সায় সারা মেলেনি। এদিন বিকেলে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিত্‍সকেরা। মাত্র ৫৭ বছর বসয়ে থমকে গেল ময়দানে ‘প্রিয়’ চিত্র সাংবাদিকতার একটা অধ্যায়।

ময়দান ছেড়ে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তে খেলার খবর সংগ্রহে রনি রায় ছিলেন অন্তপ্রাণ। গত বছর ইংল্যান্ডে ক্রিকেট বিশ্বকাপও কভার করতে গিয়েছিলেন তিনি। ক্রীড়া ক্ষেত্রে বহু আন্তর্জাতিক ইভেন্টে খেলোয়াড়দের নানা মুহূর্তের ছবি লেন্স বন্দি হয়েছে যাঁর ক্যামেরায়, তিনিই এদিন ফ্রেম বন্দি হয়ে গেলেন।

নয়ের দশকে আজকাল পত্রিকায় বিনোদন বিভাগে চিত্রসাংবাদিক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। তারপর ক্রীড়া ক্ষেত্রে চিত্র সাংবাদিক হিসেবে সিদ্ধহস্ত হয়ে ময়দানে হয়ে ওঠেন ‘প্রিয় রনি দা’। আমৃত্যু ক্রীড়াবিভাগের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। কয়েকদিন ধরে অসুস্থ থাকায় অফিসে আসতে পারেননি। কিন্তু তবুও ছবি তুলে অফিসে পাঠিয়ে দিতেন আদ্যপ্রান্ত কাজ পাগল এই মানুুষটি। কিন্তু ময়দানের প্রিয় মানুষটি ভগবানের খুব প্রিয় হয়ে উঠলেন।

মিশুকে স্বভাব ও খুনসুটির কারণে কম বয়সীদের সঙ্গেও রনি রায়ের ছিল সমান বন্ধুত্ব। প্রিয় চিত্র সাংবাদিক রনি দা’র আকস্মিক প্রয়াণে তাই স্বাভাবিকভাবেই শোকস্তব্ধ ময়দান। শোকার্ত বাংলার সংবাদ জগত। বাংলার প্রখ্যাত ক্রীড়া চিত্র সাংবাদিক রনি রায়ের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ও। বছর চারের আগে স্ত্রী পিঙ্কিকে হারিয়েছিলেন। এদিন তিনিও চলে গেলেন তাঁর প্রিয় মানুষটির কাছে।

এক শোকবার্তায় মুখ্যমন্ত্রী লেখেন, ‘বিশিষ্ট চিত্র সাংবাদিক রণজয় রায়ের (রনি) মৃত্যুতে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। আজ কলকাতায় তাঁর মৃত্যু হয়েছে। বয়স হয়েছিল ৫৭ বছর। তিনি ‘আজকাল’ পত্রিকার ক্রীড়া বিভাগের সঙ্গে প্রায় ২৫ বছর যুক্ত ছিলেন। তার আগে কাজ করেছেন ‘ভারতকথা’ পত্রিকায়। তাঁর মৃত্যুতে চিত্র সাংবাদিকতার জগতে এক শূন্যতার সৃষ্টি হল। আমি রণজয় রায়ের পরিবার ও অনুরাগীদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

সুত্র:কলকাতা24×7

আরও পড়ুন ::

Back to top button