ঝাড়গ্রাম

ঝাড়গ্রামে জীবাণুমুক্ত রবীন্দ্রমূর্তিতে স্যানিটাইজারে হাত পরিষ্কার করে ফুলের স্তবক দিলেন বিশিষ্টজনেরা


ঝাড়গ্রামে জীবাণুমুক্ত রবীন্দ্রমূর্তিতে স্যানিটাইজারে হাত পরিষ্কার করে ফুলের স্তবক দিলেন বিশিষ্টজনেরা

স্বপ্নীল মজুমদার, ঝাড়গ্রাম: রবীন্দ্রনাথের পূর্ণাবয়ব মূর্তিটি ঝাড়গ্রাম পুরসভার জীবাণুমুক্ত করা হয়েছিল। সেই সঙ্গে জীবাণুমুক্ত করা হয় ঝাড়গ্রাম শহরের রবীন্দ্রপার্ক চত্বর। শুক্রবার পঁচিশে বৈশাখের সকালে ফুলের মালা ও ফুলের স্তবকও জীবাণুমুক্ত করা হল।

স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করে রবীন্দ্রনাথের মূর্তির পাদদেশে ফুলের স্তবক দিলেন পুরসভার ভারপ্রাপ্ত প্রশাসক তথা জেলা পরিকল্পনা আধিকারিক দেবাশিস চৌধুরী, এসডিপিও (ঝাড়গ্রাম) অনিন্দ্যসুন্দর ভট্টাচার্য, পুরসভার নির্বাহী আধিকারিক তুষারকান্তি সৎপথী, ঝাড়গ্রাম থানার আইসি পলাশ চট্টোপাধ্যায়, পুরসভার সাব অ্যাসিস্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার মলয় বন্দ্যোপাধ্যায়, পুরসভার সহকারি স্যা‌নিট্যারি ইন্সপেক্টর পিনাকী মিত্র প্রমুখ।

এদিন ঝাড়গ্রাম পুরসভার উদ্যোগে ঝাড়গ্রাম শহরের রবীন্দ্রপার্কে ‘কবি প্রণাম’-এর আয়োজন করা হয়। পুরসভার ওই পার্কে রয়েছে রবীন্দ্রনাথের পূর্ণাবয়ব মূর্তি। প্রতি বছর রবীন্দ্রপার্কের মুক্তমঞ্চে পুরসভার উদ্যোগে ‘কবি প্রণাম’-এর আয়োজন করা হয়। এবার করোনা আবহে একেবারেই অন্য রকম ‘কবি প্রণাম’ হল। ফুলের স্তবক দিয়ে বিশিষ্টজনেরা শ্রদ্ধা জানানোর সময়ে বাজানো হল রবীন্দ্রসঙ্গীত। এবার করোনা পরিস্থিতির জন্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের কর্মসূচি বাতিল করেছিল পুরসভা। এদিন সকালে মাত্র আধঘন্টার সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে বিশ্বকবিকে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

আরও পড়ুন ::

Back to top button