ঝাড়গ্রাম

ঝাড়গ্রাম জেলা করোনা-হীন, সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি তৃণমূলের জেলা নেত্রীর

স্বপ্নীল মজুমদার, ঝাড়গ্রাম: করোনা মহামারীকে নির্মূল করার জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যথাসাধ্য চেষ্টা করছেন। আমপানের বিপর্যয়ের পরে পুনর্গঠনের কাজও দ্রুত গতিতে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কিন্তু এই কঠিন পরিস্থিতিতে রাজ্য সরকারের পাশে না-দাঁড়িয়ে বিজেপি নেতৃত্ব অপপ্রচার চালিয়ে রাজ্যবাসীকেই অপমান করছেন। বুধবার ঝাড়গ্রামে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এমনই অভিযোগ করলেন ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূলের সভাপতি বীরবাহা সরেন টুডু।

তিনি এও জানালেন, গ্রিন জোন ঝাড়গ্রাম জেলায় করোনা আক্রান্ত কেউ নেই। এদিন ঝাড়গ্রাম শহরের অনন্যা লজে সাংবাদিক সম্মেলন করেন বীরবাহাদেবী। তিনি বলেন, ‘‘অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় জনসংখ্যার নিরিখে পশ্চিমঙ্গের করোনা পরিস্থিতি তুলনামূলকভাবে ভাল। প্রতি দশ লক্ষ মানুষের মধ্যে পজিটিভের হার ৫৬.৩৯ শতাংশ। অথচ যেখানে জাতীয় গড় প্রতি দশ লক্ষে ১৪০.৮০ শতাংশ।’’ বীরবাহাদেবী জানান, দেশের মধ্যে করোনায় বাংলা রয়েছে ১৩ তম স্থানে। রাজ্যের প্রতি দশ লক্ষ জনসংখ্যার নিরিখে গত সপ্তাহে ন’হাজারেরও বেশি মানুষের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় বাংলায় করোনা পরীক্ষার হার ভাল বলেও দাবি করেন বীরবাহাদেবী।

করোনা পরীক্ষার ত্রুটিপূর্ণ কিট পাঠানোর জন্য বিজেপিকে কাঠগড়ায় তোলেন তিনি। করোনা ও আমপান মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরে বীরবাহাদেবী বলেন, ‘‘বিজেপি মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। মহামারী মোকাবিলায় রাজ্যের পাশে না দাঁড়িয়ে ওরা সঙ্কীর্ণ রাজনীতি করছে।’’ তাঁর অভিযোগ, রাজ্যে আমপানে এক লক্ষ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। অথচ কেন্দ্র এক হাজার কোটি টাকার আর্থিক সাহায্য ঘোষণা করেছে। এই নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বঞ্চনারও অভিযোগও তোলেন বীরবাহাদেবী। পাশাপাশি, তিনি জানান, ঝাড়গ্রাম জেলা গ্রিন জোন। এখানে করোনা আক্রান্ত কেউ নেই। সকলেই সুস্থ। তবে করোনাকে ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা বলেন বীরবাহাদেবী। সাংবাদিক সম্মেলনে জেলা তৃণমূল সভাপতির সঙ্গে ছিলেন দলের জেলা কো-অর্ডিনেটর তথা নয়াগ্রামের বিধায়ক দুলাল মুর্মু।

আরও পড়ুন ::

Back to top button