বিনোদন

কড়া জবাব দিলেন সোনম ও সোনাক্ষী

কড়া জবাব দিলেন সোনম ও সোনাক্ষী

 

ওয়েবডেস্ক:: সুশান্ত সিং মৃত্যুর পর বলিউডের চকচকে, ঝলমলে, রঙিন দুনিয়ার আড়ালে থাকা অন্ধকার অনেকটাই বেরিয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে টুইটার ছেড়েছেন সোনাক্ষী সিনহা, সালমান খানের ভগ্নিপতি ও বলিউড তারকা আয়ুশ শর্মা,

জাহির ইকবাল, সাকিব সালেমসহ আরও অনেকে। এদিকে নিজের ও মা–বাবার মন্তব্যের উঠোন তালা দিয়ে রেখেছেন সোনম কাপুর। যাতে কেউ কোনো ‘আজেবাজে’ কথা লিখতে না পারে।

ঘটনার সূত্রপাত আসলে সাত বছর আগে। যেখানে ‘কফি উইথ করণ’ অনুষ্ঠানে করণ জোহর সোনম কাপুরকে ‘হট অর নট’ সেশনে জিজ্ঞেস করেন, ‘সুশান্ত কি হট?’ উত্তরে সোনম বলেন, ‘কী জানি, হবে হয়তো।’ উত্তরে স্পষ্ট যে সোনম কাপুর সুশান্তকে চেনেন না।

সোনম সে কথা সম্প্রতি স্বীকার করে বলেছেন, ‘এটা সাত বছর আগের ঘটনা। সুশান্তের তখন মাত্র একটি ছবি মুক্তি পেয়েছে। হ্যাঁ, তখন আমি সুশান্তকে চিনতাম না। আমার প্রথম ছবি মুক্তির পরেও তো আমার কত সহকর্মী আমাকে চিনত না।’

কড়া জবাব দিলেন সোনম ও সোনাক্ষী

 

সোনম আরও লেখেন, ‘বুলিং, গালি দেওয়া, প্রতিহিংসা ও নিজের স্বার্থ উদ্ধারে যাঁরা সামগ্রিক ক্ষতি করেন, সমগ্র ইন্ডাস্ট্রিকে খারাপ দেখান, আমি জানি, এসবের কর্মফল আপনারা ভোগ করবেন। আমি চাই, সৃষ্টিকর্তা আর এই বিশ্ব আপনাকে, আপনাদের ক্ষমা করুন।’

বাবা দিবসে সোনম আবারও লেখেন, ‘আজ বিশ্ব বাবা দিবসে আমি আবারও লিখতে চাই, হ্যাঁ, আমি আমার বাবার সন্তান। হ্যাঁ, আমি আজ যা, তা আমার বাবার জন্য। হ্যাঁ, আমি সুবিধাপ্রাপ্ত।

আর আমি সে জন্য মোটেও লজ্জিত নই। বরং আমি আমার বাবার সন্তান হিসেবে গর্বিত। এখানে জন্ম নেওয়া আমার ভাগ্য, আমি কীভাবে আমার ভাগ্য অস্বীকার করি? আমি কেবল বলব, আমি গর্বিত।’

কড়া জবাব দিলেন সোনম ও সোনাক্ষী

 

অন্যদিকে টুইটারকে ‘টাটা’ বলেছেন বটে, কিন্তু থেমে নেই সোনাক্ষী সিনহা। ইনস্টাগ্রামে এক লম্বা পোস্টে যাঁরা টুইটার থেকে তাঁর বিদায় নেওয়া উদ্‌যাপন করছেন, তাঁদের একহাত দেখে নিয়েছেন সোনাক্ষী। লিখেছেন, ‘তাঁরা এমনভাবে উদ্‌যাপন করছেন যেন বিশ্বজয় করে ফেলেছেন।

আপনাদের খুশিতে আমিও খুশি। আমার জীবনকে বিষাক্ত করার সরাসরি লাইন আমি কেটে দিয়েছি। আমি আপনাদের কাছ থেকে আমাকে, আমার পরিবারকে, বন্ধুবান্ধবকে নিয়ে আজেবাজে কথা বলার সুযোগ কেড়ে নিয়েছি। যে সুযোগ, ক্ষমতা আমি আপনাদের বিশ্বাস করে দিয়েছিলাম।

গত ১০ বছরের ১ কোটি ৬০ লাখ মানুষকে আমিই আমার সম্পর্কে আর একটা বাজে কথা বলার সুযোগ নষ্ট করে দিয়েছি। আর কোনো নেতিবাচকতা আমার কাছে পৌঁছাবে না। আমি এই ঘৃণাকারীদের জন্য প্রার্থনা করি।

তাঁদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করি। আপনাদের জন্য আমার ভালোবাসা। আমি চাই, সবাই যেখানেই যাক, কেবল ভালোবাসা ছড়াক, চারপাশটা আলোকিত করুক। কেননা, ভালোবাসাই একমাত্র উত্তর, সব সময়।’

সুত্র: প্রথম আলো

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button