বীরভূম

অমিত শাহ তোমার মায়ের দলিলটা আছে তো? : অনুব্রত

অমিত শাহ তোমার মায়ের দলিলটা আছে তো? : অনুব্রত

 

ওয়েবডেস্ক :: বীরভূম, বুথ ভিত্তিক কর্মীসভায় সভা করতে এসে অনুব্রত মণ্ডলকে শনিবার এমনই কথা বলতে দেখা গেল। খয়রাশোল ব্লকে বুথ ভিত্তিক কর্মীসভায় অনুব্রত মণ্ডল কর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, “আমের মুকুল আসতেই যদি ঝরিয়ে দেন তাহলে আম তো ধরবেনা।

তাহলে আমটা কখন খাবেন? তাহলে আমের মুকুল ঝরালে চলবেনা আম খেতে হলে।” কিন্তু হঠাত্‍ করে কেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল এমন আম আর মুকুলের প্রসঙ্গ তুললেন!

অনুব্রত মণ্ডলের এদিন এমন প্রসঙ্গ তোলার মূলে রয়েছে সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পে কর্মীদের বিরুদ্ধে উঠে আসা নানান অভিযোগ। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা প্রকল্প হোক অথবা বাংলা আবাস যোজনা প্রকল্প, বিভিন্ন প্রকল্পের ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা গিয়েছে উপভোক্তারা বারবার শাসকদলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন

কাটমানি নেওয়ার। আর সেই প্রসঙ্গেই কর্মীদের সভা থেকে হুঁশিয়ারি দিতে অনুব্রত মন্ডল এদিন এমন আম আর মুকুলের প্রাসঙ্গিকতা তুলে ধরেন।

তিনি কর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, “আচ্ছা বলুন তো, আমি যদি ৫০০০ টাকা নি তাহলে সেই মানুষটা কি আর আমাকে ভোট দেবে! সে তো ভোট দেবে না। তাহলে ভোট যখন দেবে না, দলটা যদি না থাকে তাহলে আপনার আমার লাভ কি হবে?

দলটা থাকলে তো লাভ। আমের মুকুল আসতেই যদি ঝরিয়ে দেন তাহলে আম তো আর আসবেনা। তাহলে আমটা কখন খাবেন? তাহলে আমের মুকুলটা ঝরালে চলবে না আম খেতে গেলে।”

এছাড়া এদিন খয়রাশোলে পাড়সুন্ডি গ্রাম পঞ্চায়েতের মহিলা প্রধানকে অনুব্রত মণ্ডল এদিন একাই কোন কিছু সিদ্ধান্ত না নেওয়ার জন্য হুঁশিয়ারি দেন। এই প্রধানের বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে অভিযোগ রয়েছে নিজের ইচ্ছা মত কাজ করার।

আবার এলাকার অঞ্চল সভাপতির বিরুদ্ধে এই প্রধানের অভিযোগ তাকে কোন কিছু জানানো হয় না বলে। যদিও এই বিষয়টিকে আলোচনার মাধ্যমে মিটিয়ে নেওয়ার জন্য অনুব্রত মন্ডলের নির্দেশ দেন বিকাশ রায় চৌধুরীকে।

কর্মী সভায় এদিন বক্তব্য রাখার সময় অনুব্রত মণ্ডল কেন্দ্র সরকার এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নানানভাবে কটাক্ষ করতে দেখা যায়। করোনা আবহে দলীয় সভা করার সময় এদিন ফের উঠে আসে এনআরসি প্রসঙ্গ। আর এপ্রসঙ্গে আগের মতই তিনি জানান, “দিল্লিতে ক’দিন আগে অমিত শাহ একটা মিটিং করেছিল।

আর সেখানে আবার মাথামোটা বলেছে পশ্চিমবঙ্গে এলে তারা এনআরসি করবে। আর ওরা যদি এনআরসি করে তাহলে আমরা আঙ্গুল চুষবো! ওরা আমাদের সংখ্যালঘুদের বের করে দেবে, বাগদী, মুচি খেটে খাওয়াদের বের করে দেবে। তা বলছি অমিত শাহ তোমার মায়ের দলিলটা আছে তো?

৭১ সালের তোমার বাবার দলিলটা, তোমার দাদুর দলিলটা আছে তো? আগে তুমি তোমার দাদু আর ঠাকুমায়ের পরিচয়টা দাও, তবে তো তুমি অমিত শাহ হবে।

তোমার দলিলটা আগে দেখাও তারপর আমরা দেখাবো। তোমরা আসবে না, আমি চ্যালেঞ্জ করলাম। পশ্চিমবঙ্গের ২৩০ থেকে ২৪০ টা সিট পাবে মমতা ব্যানার্জি। এখানে দাঁড়িয়ে বলে গেলাম।”

সুত্র: প্রথম কলকাতা

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button