প্রযুক্তি

অ্যাপ নিষিদ্ধ হওয়ার পর ভারতীয় কর্মীদের কী বার্তা দিলেন টিক টক কর্তা, জেনে নিন !

 

ওয়েবডেস্ক :: গত সোমবার একসঙ্গে ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করে দিয়েছে ভারত সরকার। আর সেই তালিকায় সবার উপরে আছে জনপ্রিয় অ্যাপ টিক টক। ভারতে কয়েক লক্ষ সাবস্ক্রাইবার ছিল ওই অ্যাপের।

কিন্তু, কেন্দ্রের অভিযোগ ওই সব অ্যাপের মাধ্যমে ভারতীয়দের তথ্য অন্য দেশের সার্ভারে জমা হচ্ছিল। এই ঘটনার পর সংস্থার ভারতীয় কর্মীদের জন্য বিশেষ বার্তা দিলেন টিক টিক সিইও।

সংস্থার ওয়েবসইটে ওই বার্তা দিয়েছন সিইও। তিনি লিখেছেন, ‘টিক টকের ক্ষেত্রে আমরা ইন্টারনেটের নিয়ম বজায় রাখার চেষ্টা করেছি, আর তাতে আমরা সফল। আমরা আমাদের লক্ষ্যে অবিচল। ডেটা প্রাইভেসি সহ নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে আমরা নিয়ম মেনে চলেছি।’

ভারতীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি লিখেছেন, ‘২০১৮ সাল থেকে আমরা খেয়াল রেখেছি যাতে ভারতের ২০০ মিলিয়ন ইউজার তাঁদের ক্রিয়েটিভিটি প্রকাশ করতে পারে এই অ্যাপের মাধ্যমে।

নিজেদের কাজ শেয়ার করে নিতে পারে গ্লোবাল কমিউনিটির সঙ্গে। আমাদের কর্মীরাই আমাদের সবথেকে বড় শক্তি। তাদের ভালো রাখা আমাদের কাছে সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।’ তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের ২০০০ কর্মীকে ভালো অভিজ্ঞতা দেওয়ার জ্ন্য সবরকমের চেষ্টা করব।

প্রসঙ্গত, রাতের মধ্যে অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস থেকে উধাও হয়ে গিয়েছে টিক টক। চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরই এমন ঘটনা চোখে পড়েছে। এমনকি, চিনের অ্যাপগুলি আর মিলছে না।, অনেকেই টুইটারে লিখেছেন। এরপরই এই বিষয়ে মুখ খুলেছেন এই চিনা সংস্থা।

এই অ্যাপ নিষিদ্ধ হওয়ার বিষয়ে এবার সরকারের সঙ্গে কথা বলতে চলেছে এই সংস্থা। কেন অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হল, তার ব্যাখ্যা চাওয়া হবে সরকারের কাছে।

টিক টকের ভারতীয় শাখার প্রধান নিখিল গান্ধী এর আগেও একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছেন। তিনি ট্যুইটারে লিখেছেন, ‘সরকারের তরফ থেকে টিক টক নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

আমাদের তরফ থেকে সরকারের সঙ্গে কথাবার্তা চলছে। ভারতীয় আইন মেনেহী আমরা ডেটা সংরক্ষণ করি। ভারতীয় গ্রাহকদের ডেটা চিন বা অন্য কোনও সরকারের সঙ্গে আদান-প্রদান করা হয় না। ভবিষ্যতেও আমরা এরকম কিছু করব না।’

পরিবেশের বন্ধুরা, স্কুলেই চলছে সবুজ বাঁচানোর লড়াই।

সুত্র: কলকাতা24×7

আরও পড়ুন ::

Back to top button