ঝাড়গ্রাম

ওয়েস্টবেঙ্গল নিউজ ২৪’-এ খবরের জের, মাধ্যমিকে ৬০০ পাওয়া ঝাড়গ্রামের অভাবী-মেধাবীর পাশে বাম ছাত্র ও যুব সংগঠন

স্বপ্নীল মজুমদার, ঝাড়গ্রাম: মাধ্যমিক পরীক্ষায় কৃতী ঝাড়গ্রাম শহরের অভাবী মেধাবী কৌশিক দাসের পাশে দাঁড়াল বাম ছাত্র ও যুব সংগঠন। সিপিআইয়ের ছাত্র সংগঠন এআইএসএফ এবং ও যুব সংগঠন এআইওয়াইএফের নেতারা শনিবার কৌশিকের বাড়িতে গিয়ে জানিয়ে দিয়ে এলেন, দু’টি সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে আগামী দু’বছর তার পড়াশোনার খরচ বহন করা হবে। এমন আশ্বাস শো‌নার পরে কৌশিকের প্রতিক্রিয়া, ‘‘খুব নিশ্চিন্ত বোধ করছি। উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ব।’’

ঝাড়গ্রাম শহরের বাণীতীর্থ হাইস্কুলের ছাত্র কৌশিক মাধ্যমিকে পেয়েছে ৬০০ নম্বর। শহরের বেনাগেড়িয়া এলাকায় টিনের ছাউনির মাটির ঘুপচি ঘরে বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকে কৌশিক। কৌশিকের বাবা মান্তু দাস পেশায় ট্রলি চালক। মা সুমিত্রাদেবী গৃহ-পরিচারিকার কাজ করেন। দু’জনের সামান্য আয়ে নুন আনতে পান্তা ফুরোনোর অবস্থা। কিন্তু চরম অভাবের মধ্যেও ভাল ফল করেছে কৌশিক। কৌশিকের সেভাবে গৃহশিক্ষক ছিল না। স্কুলের পড়াশোনা ছাড়াও শহরের একটি কোচিং সেন্টারে পড়েছে সে। মান্তুবাবুর আর্থিক সীমাবদ্ধতার কথা জেনে নামমাত্র পারিশ্রমিকে কৌশিককে পড়িয়েছেন ওই কোচিং সেন্টার কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন : বাধা ঠেলে উচ্চ মাধ্যমিকে মনের জোরে ‘সব্যসাচী’ সন্দীপন

‘ওয়েস্টবেঙ্গল নিউজ ২৪’-এ কৌশিকের ভাল ফলের সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। সেই সংবাদ পড়ে কৌশিকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এআইএসএফের রাজ্য সহ-সম্পাদক প্রতীক মৈত্র। এরপরে এদিন দুপুরে প্রতীক সহ সংগঠনের জেলা সম্পাদক দেবাশিস ভুই, জেলার ছাত্র নেতা উজ্জ্বল চ্যাটার্জি, এআইওয়াইএফের জেলা সম্পাদক শ্রীদীপ মুখার্জি, জেলার যুব নেতা বিজয় দাস বেনাগেড়িয়ায় কৌশিকের বাড়িতে যান। ভাল ফলের জন্য কৌশিকের হাতে ফুলের তোড়া ও মিষ্টির প্যাকেট তুলে দেন ছাত্র-যুব নেতারা। প্রতীক জানালেন, দুই সংগঠনের উদ্যোগে আগামী দু’বছর কৌশিকের পড়াশোনার সামগ্রী কেনার জন্য সব রকম সাহায্য করা হবে।

আরও পড়ুন ::

Back to top button