কলকাতা

করোনা চিকিৎসা বিল ১০ লাখ! কাঠগড়ায় রুবি

মারণ ভাইরাস নভেল করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করতে হচ্ছে গোটা বিশ্বকে। অথচ এখনও পর্যন্ত এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার মতো না বেড়িয়েছে কোনও ভ্যাকসিন না বেড়িয়েছে কোনও ওষুধ। মূলত নিউমোনিয়া ঠেকানোর ওষুধ দিয়ে আর ভেন্টিলেশনে রেখে করোনা আক্রান্তদের চিকিত্‍সা চালানো হচ্ছে।

গোটা বিশ্বে কার্যত সেভাবেই করোনা আক্রান্তদের চিকিত্‍সা করা হচ্ছে। অথচ এই কলকাতায় করোনা আক্রান্ত রোগীর পরিবারের কাছ থেকে করোনার ওষূধের দাম বাবদ নেওয়া হচ্ছে ৫ লক্ষ টাকা। শুধু তাই নয়, বেড ভাড়া নেওয়া হচ্ছে দৈনিক সাড়ে ১২ হাজার টাকা করে, ইনভেস্টিগেশনের নামে নেওয়া হচ্ছে ২ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে ১৪ দিন হাসপাতালে থেকে চিকিত্‍সা করার সম্ভাব্য খরচ হিসাবে রোগীর পরিবারের হাতে বিল ধরানো হচ্ছে ১০ লক্ষ ৩৯ হাজার টাকার।

অথচ গোটা বিশ্বে এখনও করোনার ওষুধ বলে কিছুই বার হয়নি। কার্যত করোনার নামে, মানুষকে বাঁচানোর নামে শুরু হয়ে গিয়েছে একের পর এক বেসরকারি হাসপাতালে মানুষ মারার যজ্ঞ। যে হাসপাতালের বিল নিয়ে এত কাণ্ড সেটি কলকাতা তথা বাংলার বিখ্যাত রুবি জেনারেল হাসপাতাল।

[ আরও পড়ুন : যাত্রীরা মুখ ফেরাতে ভাড়া কমালেন ট্যাক্সিমালিকরা ! ]

মানুষ হাসপাতালে যায় চিকিত্‍সা করিয়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার জন্য। কিন্তু দুর্ভাগ্য করোনার সুযোগ নিয়ে রাজ্যের কিছু বেসরকারি হাসপাতাল দিন দুপুরে ডাকাতি শুরু করার পাশাপাশি কার্যত মানুষ মারার কাজ শুরু করে দিয়েছে। এটা আরও বড় দুর্ভাগ্য যে রুবির মতো স্বনামধন্য হাসপাতালও সেই তালিকায় নিজের নাম করে নিয়েছে।

গোটা ঘটনাটি প্রকাশ পেয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিলের ছবি ছড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি তা ভাইরাল হয়ে যাওয়ায়। জানা গিয়েছে, প্রশান্ত কুমার সিনহা নামে কলকাতার যাদবপুর এলাকার সন্তোষপুরের বাসিন্দা বছর ৫৫’র এক ব্যক্তি গত ২৯ জুলাই করোনা আক্রান্ত হওয়ার কারনে রুবি হাসপাতালে ভর্তি হন।

তাঁর চিকিত্‍সার জন্য ৪ঠা আগস্ট রুবি হাসপাতালের তরফ থেকে তাঁর পরিবারের হাতে ১০ লক্ষ ৩৯ হাজার টাকার বিল তুলে দেওয়া হয়। সেই বিলেই ওষুধের জন্য ৪ লক্ষ ৯৯ হাজার টাকা ধরা হয়েছে যা নিয়ে তমুল বিতর্ক শুরু হয়েছে। নানা মহলেই প্রশ্ন উঠছে এটা মানুষের চিকিত্‍সা করা হচ্ছে নাকি মানুষ মারার কারখানা খোলা হয়েছে।

[ আরও পড়ুন : ছেলেকে উলটো করে বেঁধে বেধড়ক মার, ভিডিও ভাইরাল হতেই গ্রেপ্তার বাবা ]

সোশ্যাল মিডিযয়ায় তমুক সমালোচনা চলছে এই ঘটনাটি ঘিরে। যেখানে গোটা বিশ্বে করোনার কোনও ওষুধ বার হয়নি, শুধুমাত্র নিউমোনিয়ার ওষুধ দিয়ে চিকিত্‍সা চালানো হচ্ছে সেখানে রুবি জেনারেল হাসপাতাল কীভাবে ৫ লক্ষ টাকার ওষুধের দাম নেয় ১৪ দিনের জন্য। প্রশ্ন উঠেছে হাসপাতালের বেড ভাড়া নিয়েও। দিনপ্রতি কেন সাড়ে ১২ হাজার টাকা!

সুত্র: এই মুহূর্তে

আরও পড়ুন ::

Back to top button