জাতীয়

পাঁচ ভারতীয়কে অপহরণ চিনের

অরুণাচল প্রদেশ থেকে পাঁচ ভারতীয়কে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আর সেই খবর প্রকাশ্যে আসার পর চিনের সেনাবাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগ করল ভারতীয় সেনা।

রবিবার ট্যুইট করে একথা জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কিরণ রিজিজু।

অরুণাচলের সাংসদ রিজিজু এক সাংবাদিকের ট্যুইটের উত্তরে একথা জানান রবিবার। ওই সাংবাদিক জানতে চেয়েছিলেন, পাঁচ অপহৃতদের বিষয়ে কী খবর এসেছে। তিনি বিদেশ মন্ত্রক, রিজিজু ও মুখ্যমন্ত্রী প্রেমা খাণ্ডুকে ট্যাগ করেছিলেন।

এর জবাবে রিজিজু জানান, ভারতীয় সেনা ইতিমধ্যেই চিনের সেনাবাহিনীকে হটলাইনে মেসেজ পাঠিয়েছে। এখনও কোনও জবাব পাওয়া যায়নি।

শুক্রবার নাকো এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গিয়েছে। আরও দু’জন ঘটনাস্থল কোনোভাবে পালিয়ে গিয়ে পুলিশকে সব তথ্য জানায়।

ইতিমধ্যেই অরুণাচল পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। পুলিশ সুপার তারু গুসার বলেন, ‘অফিসার ইন চার্জকে নাকো থানায় পাঠানো হয়েছে। দ্রুত প্রকৃত তথ্য সামনে আনার নিদেশ দিয়েছি। রবিবার সকালের মধ্যেই সব সত্যি সামনে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন : আঞ্চলিক নিরাপত্তা ইস্যুতে ইরান-ভারত বৈঠক

শনিবার সকালেই এই অভিযোগ সামনে আসে। পাঁচ ভারতীয় নাগরিককে অপহরণের অভিযোগ আনেন কংগ্রেস সাংসদ তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিনং ইরিংয়ের। তাঁর অভিযোগে সরগরম দেশের রাজনীতি। যদিও এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে কেউ মুখ খোলেনি। সেনা কিংবা কেন্দ্রের তরফে এই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে মন্তব্য করা হয়নি।

কংগ্রেস সাংদের টুইটে লিখেছেন, আপার সুবানসিরি জেলার নাচোয় জঙ্গলে শিকার করতে যাওয়া পাঁচ ভারতীয় নাগরিককে লাল ফৌজ অপহরণ করে রেখেছে চিনের বাহিনী। এই ব্যাপারে দ্রুত কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন নিনং। চিনের হাতে আটক হওয়া ওই পাঁচজনকে দ্রুত ছাড়ার দাবি জানানো হয়েছে।

ইরিং বলেছেন, লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চিনের মধ্যে টানাপোড়েন চলেছে। এজন্য ভারতের নজর হঠাতে চিন অরুণাচল সীমান্তে এমন কাজ করছে। চিন এখন অরুণাচলের ওপর নজর দিয়েছে। এখন চিনকে কড়া জবাব দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। কয়েক মাস আগে এমনই ঘটনা ঘটেছিল। যদিও কিছুদিন পর অপহৃতকে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, ভারত চিন সীমান্ত উত্তপ্ত। দেশের বেশ কয়েকটি প্রান্ত জুড়েই ঠান্ডা লড়াই চলছে। হিন্দুস্তান টাইমসের এক রিপোর্ট বলছে উত্তরাখন্ডের লিপু লেখ, উত্তর সিকিমের বেশ কিছু সীমান্ত সংলগ্ন এলাকা, অরুণাচল প্রদেশের সীমান্তে সেনা মোতায়েন করেছে চিন।

 

আরও পড়ুন ::

Back to top button