ঝাড়গ্রাম

শাসকদলকে পক্ষপাতিত্ব? ভোটের আগে আয়েষাকে সরালো নির্বাচন কমিশন

স্বপ্নীল মজুমদার

ঝাড়গ্রাম: ঝাড়গ্রাম জেলায় ভোট গ্রহণের একদিন আগে জেলাশাসক আয়েষা রানিকে সরিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন। বৃহস্পতিবার কমিশনের নির্দেশে আয়েষাকে মুখ্য সচিবের দপ্তরে যুক্ত থাকতে বলা হয়েছে। কমিশনের নির্দেশে নতুন জেলাশাসকের দায়িত্ব নিয়েছেন জয়সী দাশগপ্ত। জয়সীদেবী এর আগে অচিরাচরিত শক্তি উন্নয়ন বিভাগের যুগ্ম সচিব ছিলেন।

সূত্রের খবর, জেলাশাসক আয়েষা রানির বিরুদ্ধে বার কয়েক কমিশনে অভিযোগ করেছিল বিজেপি। আয়েষা শাসকদলের হয়ে কাজ করছিলেন বলে সম্প্রতি কমিশনে ফের নালিশ জানানো হয়। গত ১৫ মার্চ ঝাড়গ্রাম শহরে অমিত শাহের সভায় লোকজন ভর্তি বাস আটকে দিয়েছিল প্রশাসন। বিজেপির অভিযোগ, আয়েষা শাসকদলকে সুবিধা করে দেওয়ার জন্য সভাস্থলের কয়েক কিলোমিটার আগে বাসগুলিকে আটকানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন : ঝাড়গ্রামে উন্নয়ন-প্রতিশ্রুতিতে উপুড়হস্ত অমিত শাহ

লোক না হওয়ায় ওই সভায় আসেননি অমিত শাহ। এছাড়াও গত মঙ্গলবার লালগড়ের রামগড়ে বিজেপির সভার অনুমতি না পাওয়ার ক্ষেত্রেও আয়েষার ভূমিকা ছিল বলে অভিযোগ তোলে বিজেপি। আয়েষার বদলিতে তৃণমূল শিবিরে ভোটের আগেই যেন বিজয়ার বিষাদ! অন্যদিকে, বিপুল উৎসাহ বিজেপি শিবিরে।

বিজেপির জেলা সহ সভাপতি উৎপল দাস মহাপাত্র বলেন, “আয়েষা রানি গত আড়াই বছর ধরে তৃণমূলের নেত্রীর মত কাজ করেছেন। উনি জনগণের জেলাশাসক ছিলেন না। উনি কেবল তৃণমূলের জেলাশাসক ছিলেন। ওনাকে অনেক আগেই বদলি করা করা উচিত ছিল।” তৃণমূলের জেলা সভাপতি দুলাল মুর্মুর পাল্টা অভিযোগ, “বিজেপির মিথ্যা অভিযোগে জেলাশাসককে সরানো হয়েছে। আয়েষা দক্ষ ও নিরপেক্ষ প্রশাসক ছিলেন।”

আরও পড়ুন ::

Back to top button