রাজ্য

নির্বাচনী প্রচারণায় নিষেধাজ্ঞা মমতার


মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে আগামী ২৪ ঘণ্টা নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারবেন না। এমন নির্দেশনাই জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। কমিশন জানিয়েছে, সোমবার রাত ৮টা থেকে মঙ্গলবার রাত ৮টা পর্যন্ত নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারবেন না তিনি। খবর আনন্দবাজারের।

প্ররোচনামূলক বক্তৃতার অভিযোগে মমতাকে পাঠানো নোটিশের জবাবে কমিশন সন্তুষ্ট না হওয়ায় এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তবে নির্বাচন কমিশনের এমন নিষেধাজ্ঞায় কড়া মন্তব্য করেছে তৃণমূল।

আরও পড়ুন : তৃণমূলকে হুমকি দেয়া অভিনেতা মিঠুনকে নিয়ে যা বললেন মমতা

দলটির মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেছেন, মানুষ এটার জবাব দেবে। পক্ষপাতদুষ্ট কমিশন বিজেপি’র শাখা সংগঠন। ভোটের বাক্সে এটার জবাব দেবে মানুষ। দলের আর এক মুখপাত্র ডেরেক ও’ব্রায়েন বলেন, এটা গণতন্ত্রের জন্য কালো দিন।

তারকেশ্বরেরের সভায় গত ৩ এপ্রিল ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট (আইএসএফ)-এর আব্বাস সিদ্দিকীর নাম না করে মন্তব্য করেন মমতা। এসময় তিনি বলেন, সংখ্যালঘু ভোট ভাগ হতে দেবেন না। বিজেপি এলে মনে রাখবেন বিপদ সবচেয়ে বেশি আপনাদের।

মমতা এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে কমিশন বলছে, ধর্ম বা জাতপাতের ভিত্তিতে ভোট চাওয়া আদর্শ নির্বাচনী আচরণবিধির পরিপন্থী। কোনও প্রার্থীর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ প্রমাণিত হলে জনপ্রতিনিধিত্ব আইন অনুযায়ী তার প্রার্থীপদ খারিজও করা যেতে পারে। তা নিয়েই নোটিশ পাঠায় কমিশন।

এরপর কোচবিহারের জনসভা থেকেও কেন্দ্রীয় বাহিনীর সমালোচনা করেন তৃণমূল নেত্রী। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ‘নির্দেশেই’ কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী বা সিআরপিএফ’র একাংশ বিজেপির হয়ে কাজ করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

মমতা বলেন, সিআরপিএফ যদি গন্ডগোল করে তাহলে নারী একটা দল তাদের ঘেরাও করে রাখবেন। আর একটা দল ভোট দিতে যাবেন। শুধু ঘেরাও করে রাখলে ভোট দেয়া হবে না। তাই ভোট নষ্ট করবেন না। ৫ জন ঘেরাও করবেন। ৫ জন ভোট দেবেন।

এজন্য মমতাকে নোটিশ পাঠানো হয়। শনিবারই কমিশনকে সেই নোটিশের জবাব দেন মমতা। মমতা লিখেছেন, সিআরপিএফ’র প্রতি আমার সর্বোচ্চ সম্মান রয়েছে। দেশের সুরক্ষা এবং নিরাপত্তায় তাদের অবদান খুব উঁচুতে।

এর ফলে মমতার মঙ্গলবারের সফরসূচি বাতিল হয়ে গেলো। তৃণমূল সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বারাসত, বিধাননগর, হরিণঘাটা ও কৃষ্ণগঞ্জে মমতার সভা করার কথা ছিল।

আরও পড়ুন ::

Back to top button