সংগীত

রেকর্ডিং থেকে শ্যুটিং সবটাই মুঠোফোনে, শাহ্ আব্দুল করিম-এর গান শোনালেন তরুণ প্রজন্মের শিল্পী সোহম ভৌমিক

মন্দিরা পান্ডা

লকডাউন পরিস্থিতিতে থেমে গিয়েছে জীবনের স্বাভাবিক ছন্দ। তবে শিল্পীসত্তা নতুন কিছু সৃষ্টির উল্লাসে সর্বদা ব্রতী। নতুন করে তা আর একবার প্রমাণ করলো জনপ্রিয় লোকগানের দল মহুল ফোক ব্যাণ্ডের অন্যতম পরিচিত মুখ ও কনিষ্ঠতম সদস্য সোহম ভৌমিক। রাজ্যজুড়ে নানান বিধিনিষেধ। সকলেই প্রায় গৃহবন্দী। এমতাবস্থায় মানুষের কাছে কিছু সদর্থক বার্তা ও প্রাণোচ্ছ্বলতা পৌঁছে দেওয়াই মুখ্য উদ্দেশ্য। হঠাৎ “গাড়ি চলে না” গানটিই কেন বাছলেন সোহম? উত্তরে বলেন, “জীবন যে স্বাভাবিক ছন্দে চলছিল ২০২০ সাল থেকে অতিমারীর কারণে হঠাৎ করেই তার ছন্দপতন ঘটেছে। জীবনের গাড়ি যেন হঠাৎ খারাপ হয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে শাহ্ আব্দুল করিম-এর এই গানটি বড় বেশি মানানসই। আশা রাখি খুব তাড়াতাড়ি আমাদের জীবনের গাড়িও স্বাভাবিক গতি ফিরে পাবে।” তাঁর এই প্রয়াসের জন্য বাংলাদেশের বিশিষ্ট গবেষক ও সুকন্ঠী সঙ্গীতশিল্পী ঐশিকা নদী, কলকাতার বিশিষ্ট শিল্পী জয় শংকর, লোকসঙ্গীত শিল্পী শম্পা বিশ্বাস, “মাদল” ব্যাণ্ডের শিল্পী রুশা প্রমুখ ব্যক্তিত্বরা সামাজিক মাধ্যমে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

সোহম ভৌমিক

সমস্তরকম কোভিড বিধি ও স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নির্দেশিকা মেনে গানটির রেকর্ডিং এবং দৃশ্যায়ন সম্পূর্ণরূপে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে করা হয়েছে। মিউজিক অ্যারেঞ্জমেন্ট করেন সোহম নিজেই। মিক্সিং এবং মাস্টারিং করেছেন দূর্গেশ প্রসাদ। গিটার এবং মাউথ অর্গান বাজিয়েছেন সৌম্যজিৎ সেনগুপ্ত। গানটির দৃশ্যায়নে রয়েছেন সঞ্জিত ব্যানার্জী, অভিলাষা ঘোষ, বিশিষ্ট লোকসঙ্গীত শিল্পী সোনাই সেন এবং পূর্ণেন্দু মাইতি। হাসি-মজা-আনন্দে সবাই মিলে দর্শকদের উপহার দিয়েছেন একরাশ খুশির মুহুর্ত।

দৃশ্যগ্রহণ করেছেন রাজা মুন্সি ও ভিডিও এডিটিং করেছেন সৌস্তভ দাস। নির্দেশকের ভূমিকায় থেকেছেন মহুল ফোক ব্যাণ্ডের প্রাণপুরুষ পার্থ ভৌমিক। গানটি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “প্রতিটি পরিস্থিতিই আমাদের নতুন কিছু শিখিয়ে যায়। বস্তুত এই বিচ্ছিন্ন পরিস্থিতিতে কীভাবে প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে,অন্তত কিছুটা হলেও মানুষের সান্নিধ্যে থাকা যায়, সেই কারণেই এই আয়োজন। স্বল্প ও সামান্য উপাচারে সকলের জন্য এই প্রয়াস।”

সোহম ভৌমিক নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করেছেন গানটি। এছাড়াও মহুলের ফেসবুক গ্রুপ ও পেজেও রয়েছে গানটি। মহুলের ইউটিউব চ্যানেল, নন-স্টপ বিনোদন ইউটিউব চ্যানেলের পাশাপাশি সমস্ত ডিজিটাল স্টোর যেমন JioSaavn, Gaana, iTunes, Amazon, Spotify প্রভৃতি জায়গায় থাকবে গানটি এবং এয়ারটেল,জিও ও ভোডাফোনের উপভোক্তারা এই গানটিকে কলার টিউন হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।

গানটির ডিজিটাল ডিস্ট্রিবিউশন পার্টনার ওটিটি সলিউশনস প্রাইভেট লিমিটেড। প্রসঙ্গত ওটিটি-র কর্ণধার সুদীপ বসু বলেন, “মহুলের এই প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানাই। এত অল্প বয়সে সোহম খুব দক্ষতার সঙ্গে কাজ করেছে। আশা করি সকলের খুব ভালো লাগবে। নতুন প্রতিভার সঙ্গে আমরা সবসময় আছি। সোহমের জন্য অনেক শুভ কামনা রইলো।”

গানটি এখনো শুনে না থাকলে নীচে দেওয়া ইউটিউব লিংকে ক্লিক করে শুনে নিতে পারেন।

লেখা সৌজন্যে- binodanplus.com

আরও পড়ুন ::

Back to top button