ওপার বাংলা

বাংলাদেশে করোনায় আরও ৫৪ মৃত্যু, শনাক্ত প্রায় ৪ হাজার

মহামারি করোনাভাইরাসে বাংলাদেশে আরও ৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৩৯৯ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে আরও তিন হাজার ৮৮৩ জনের শরীরে। আর শনাক্তের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮.৫৯ শতাংশে।

শুক্রবার বিকালে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ২০ হাজার ৮৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে শনাক্ত হয়েছে তিন হাজার ৮৮৩ জন। মোট শনাক্তের সংখ্যা আট লাখ ৪৪ হাজার ৯৭০ জন।

উল্লিখিত সময়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৯৫৫ জন। মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা সাত লাখ ৭৮ হাজার ৪২১ জন।

নতুন মৃত্যুবরণকারী ৫৪ জনের মধ্যে পুরুষ ৩৫ জন ও নারী ১৯ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছে নয় হাজার ৬২৩ জন ও নারী তিন হাজার ৭৭৬ জন। মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে সাতজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৫ জন ও ষাটোর্ধ্ব ২৬ জন রয়েছেন।

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১৫ জন, রাজশাহী বিভাগে ১২ জন, খুলনা বিভাগে আটজন, বরিশাল বিভাগে চারজন, সিলেট বিভাগে দুজন ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন রয়েছে। এ ছাড়া সরকারি হাসপাতালে ৫১ জন, বেসরকারি হাসপাতালে একজন ও বাসায় দুজন মারা গেছে।

বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। টানা কয়েক মাস মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা বাড়ার পর তা আস্তে আস্তে কমতে শুরু করে। তবে চলতি বছরের মার্চের শেষ দিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলে বাড়তে থাকে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা। মাঝে কিছুদিন পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়েছিল। শনাক্তের হার ১০ শতাংশের নিচে নেমেছিল। তবে গত কয়েক দিন ধরে আবার বাড়ছে মৃত্যু। সঙ্গে শনাক্তের সংখ্যা ও হার।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মারা গেছেন আরও আট হাজার ৫৯৬ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন তিন লাখ ৮৫ হাজার ৬০১ জন। এ নিয়ে বিশ্বে এখন পর্যন্ত মোট করোনায় মৃত্যু হলো ৩৮ লাখ ৫৭ হাজার ৭৯৪ জনের এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ কোটি ৮১ লাখ ৯৫ হাজার ৯২৯ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৬ কোটি ২৬ লাখ ৯২ হাজার ৭৫৪ জন।

আরও পড়ুন ::

Back to top button