নদীয়া

কলকাতার দেবাঞ্জনের পর এবার কি নদীয়ার রাধারানী?

মলয় দে

চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে এক কোটি টাকা প্রতারণা নিজেকে সিআইডি পরিচয় দেওয়া এক মহিলার বিরুদ্ধে, নদীয়ার একাধিক অনুষ্ঠানে বিভিন্ন নেতা মন্ত্রীর সাথে এক মঞ্চে দেখা গেছে তাকে।

রাধারানী বিশ্বাসের নামে কৃষ্ণনগর কাঁঠালপোতায় ভাড়া থাকা রাধারানী বিশ্বাস নামে এক মহিলা বিগত লকডাউনের শুরু থেকেই বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কাজ করতে থাকে! যদিও পাশেই তার একটি জমি কেনা আছে এবং অপর একটি জমিতে তিন তলা বাড়ি তৈরি হচ্ছে!

তিনি নিজেকে ভবানী ভবনের সিআইডি দপ্তরের ডিএসপি পদে চাকুরিরতা বলে পরিচয় দেন! এবং সেই সুবাদে কৃষ্ণনগর এবং আশেপাশের করিমপুর বগুলা অঞ্চল থেকে স্বাস্থ্য দপ্তর, শিক্ষক , সহ নানা সরকারি বিভাগে বিভিন্ন চাকরি নেওয়ার জন্য যোগাযোগ করেন বেকার ছেলে মেয়েরা।

ওই এলাকার প্রাক্তন কাউন্সিলরের স্বামী বিশ্বজিৎ চক্রবর্তী জানান, কারুর কাছে ১০ লক্ষ কারোর কাছে ১৪ লক্ষ এভাবেই প্রায় ১৫-১৬ জন টাকা দিয়ে প্রতারিত হচ্ছে এ খবর আমার কাছে আসে গত কয়েকদিন আগে, অনেকে প্রকাশ্যে এসে বলতে না পারলেও এরই মধ্যে থেকে দুজন লিখিত অভিযোগ জমা দেয় কোতোয়ালি থানায়। সেই মোতাবেক পুলিশ এসে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের। ওই প্রতারণা করা মহিলা ড্রাইভার দুই একজনকে শাসানি দেন প্রকাশ্যে টাকার ব্যাপারে কিছু না বলার জন্য।

ওই এলাকার গৌরব চ্যাটার্জী জানান, পাড়ায় বাস করেন, এত বড় মাপের একজন, স্বভাবতই নিজের বেকারের দুরবস্থা কথা জানাতেই উনি বলেন 8 লাখ টাকা লাগবে, যার মধ্যে মেইল আসার আগে ৫ লক্ষ এবং ওয়েবসাইটে নাম প্রকাশিত হওয়ার আগে তিন লক্ষ। আমি পাঁচ লক্ষ টাকা দেওয়ার পর , একটা মেইল এসেছিলো বগুলা হাসপাতাল মেডিকেলের জন্য , সেখানে মেডিকেল করানোর পর বাকি তিন লক্ষ টাকা উনার হাতেই ক্যাশ দিই।

বিশ্ববাংলা লোগো দেওয়া একটি ওয়েবসাইটে আমার নাম প্রকাশিত হয়, কিন্তু সবকিছুতেই একটা সন্দেহ ছিল আমার, তাই দুই একজন অভিজ্ঞ কে বিষয়টি জানালে তারা সার্চ করে দেখে সেটা সম্পূর্ণ ভূয়ো, এরপর থেকে আমাকে এড়িয়ে চলতেন উনি, তাই বাধ্য হয়ে থানায় এফআইআর করেছি।

জেলার একাধিক তৃণমূল নেতৃত্বের সঙ্গে তাকে দেখা গেছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে!তাহলে কি কলকাতার দেবাঞ্জনের পর এবার কৃষ্ণনগরের রাধারানী?

আরও পড়ুন ::

Back to top button