জাতীয়

প্রয়াত হিমাচলপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বীরভদ্র সিং

করোনা পরবর্তী উপসর্গ প্রাণ কাড়ল হিমাচলপ্রদেশের ৬ বারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা বীরভদ্র সিংয়ের। বৃহস্পতিবার ভোর ৩ টে ৪০ মিনিট নাগাদ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। রেখে গেলেন স্ত্রী ও পাঁচ সন্তানকে। তাঁর প্রয়াণে শোকের ছায়া রাজনৈতিক মহলে।

প্রবীণ এই কংগ্রেস নেতা বেশ কিছুদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন। গত সোমবার নতুন করে হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। তারপর থেকেই সংকটজনক অবস্থায় সিমলার ইন্দিরা গান্ধী মেডিক্যাল কলেজের ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটে ভর্তি ছিলেন। ৮৭ বছর বয়সি প্রবীণ নেতা এর আগে দু’বার করোনার কবলে পড়েছিলেন।

প্রথমবার তিনি এই মারণ ভাইরাসের কবলে পড়েন ১২ এপ্রিল। সুস্থও হয়ে যান। ১১ জুন ফের তাঁর শরীরে করোনা ভাইরাসের হদিশ মেলে। তখনও করোনামুক্ত হয়েছিলেন। কিন্তু দু’বার করোনা আক্রান্ত হওয়ার ধকল সইতে পারেনি বীরভদ্র সিংয়ের শরীর। বেশ কিছু জটিল সমস্যা দেখা গিয়েছিল। বুধবার থেকে শ্বাসকষ্টের সমস্যা দেখা দেওয়ায় বীরভদ্রকে পর্যবেক্ষণে রেখেছিলেন হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের চিকিত্‍সকেরা। শেষপর্যন্ত বৃহস্পতিবার ভোরে প্রয়াত হন তিনি।

বীরভদ্র সিং প্রায় ৬ দশক রাজনীতিতে ছিলেন। হিমাচলপ্রদেশের ৯ বারের বিধায়ক হওয়ার পাশাপাশি পাঁচবার সাংসদও নির্বাচিত হয়েছেন। ৬ বার হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন সদ্যপ্রয়াত কংগ্রেস নেতা। এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সময় ধরে হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রী থাকার রেকর্ড তাঁর দখলেই আছে।

প্রথমবার ১৯৮৩ সালে মুখ্যমন্ত্রী হন। ২০১৭ সাল পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও হয়েছেন। একাধিকবার রাজ্য বিধানসভায় বিরোধী দলনেতার আসনেও বসেন। তবে নিজের রাজনৈতিক কেরিয়ারের শেষদিকে বেশ কিছু দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে। আগামী বছর হিমাচলপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচন। বীরভদ্রের মৃত্যু কংগ্রেসকে চাপে ফেলে দিল।

সুত্র : আজকাল

আরও পড়ুন ::

Back to top button