নদীয়া

বনদপ্তর এর চরম উদাসীনতায় ঝুঁকি নিয়ে বিষাক্ত গোখরো সাপ ধরলো এলাকাবাসী

মলয় দে

গৃহস্থ বাড়ির ঘরের ভেতরে ঢুকে পড়ল বিষাক্ত গোখরো সাপ! আতঙ্কে পরিবার সহ গোটা এলাকা। বনদপ্তরে একাধিকবার ফোন করলে উদ্ধারের জন্য কোনো সহায়ক নেই বলেই জানায় বনদপ্তর, উল্টে পরামর্শ দেওয়া হয় সাপটিকে আপনারাই উদ্ধার করুন এবং জঙ্গলে ছেড়ে দিন, এরপর থেকেই ক্ষোভে ফেটে পড়ে এলাকার লোকজন।

তাদের অভিযোগ একাধিকবার বনদপ্তর এর ফোন করলেও কোন বনদপ্তরের কর্মীদের পাঠানো হয়নি, ধৈর্যচ্যুত হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এলাকারই দুই এক জন যুবক ওই বিষাক্ত গোখরো সাপ টিকে হাত দিয়ে ধরে ফেলে এরপর বস্তাবন্দি করে রেখে দেয়। এরপরও বনদপ্তরকে ফোন করলেও কোনরকম সদুত্তর মেলেনি, গতকাল রাত থেকে ওই বিষাক্ত সাপ টিকে বস্তাবন্দী করে রেখে দেয় এলাকার লোকজন।

আজ সকালেও বনদপ্তর কে ফোন করে ওই এলাকার বেশ কয়েকজন যুবক, প্রায় দুই ঘণ্টা বাদে দফতরের কর্মীরা এসে ঘটনাস্থলে পৌঁছান ততক্ষণে বস্তাবন্দি সাপটি বেরিয়ে যায় জঙ্গলে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, উল্টে বনদপ্তরের কর্মীদের শাসানীর মুখে পড়তে হয় এলাকার লোকজনদের।

স্বভাবতই বনদপ্তরের এমন উদাসীনতায় ক্ষোভ তৈরি হয় সাধারণ মানুষের মধ্যে। তাদের অভিযোগ বিষাক্ত গোখরো সাপ জঙ্গলে বেরিয়ে গেলেও আবারো যদি এলাকার কোন এক ব্যক্তির বাড়িতে ঢুকে পড়ে এরপর যদি কোন দুর্ঘটনা ঘটে তার দায় কে নেবে। সরকারি তহবিলে গঠিত মাইনে দেওয়া বনকর্মীদের কাজ কি তাহলে!

আরও পড়ুন ::

Back to top button