রাজনীতিরাজ্য

শুভেন্দুর দেহরক্ষীকে খুনের অভিযোগ, ৩ বছর পর দায়ের FIR, জেরার মুখে পড়তে পারেন শুভেন্দু

খুন করা হয়েছে শুভেন্দু অধিকারীর দেহরক্ষী শুভব্রত চক্রবর্তীকে। এই অভিযোগ নিয়ে খুনের পর তিন বছর পর থানায় এফআইআর দায়ের করলেন প্রাক্তন মন্ত্রী শুভেন্দুর প্রাক্তন দেহরক্ষীর স্ত্রী সুপর্ণা কাঞ্জিলাল চক্রবর্তী। কীভাবে গুলি লেগেছিল শরীরে? কেনই বা কলকাতা নিয়ে যেতে অ্যাম্বুলেন্স পেতে দেরি হয়েছিল? এই প্রত্যেকটি প্রশ্নের উত্তর খুঁজেছেন সুপর্ণা। সঠিক তদন্তের দাবি করেছেন প্রশাসনের কাছে।

ঘটনা ২০১৮ সালের ১৪ অক্টোবরের। ওইদিন সকালে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয় তত্‍কালীন রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর দেহরক্ষী শুভব্রতর। সেই সময় একটি স্কুলে কর্মরত ছিলেন সুপর্ণা। একটি ফোনে জানতে পারেন তার স্বামী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। কাঁথি হাসপাতালে প্রথমে ভর্তি করানো হলেও, শুভব্রত শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে দ্রুত। তড়িঘড়ি কলকাতা স্থানান্তর করার জন্য অ্যাম্বুলেন্স পাওয়া যায়নি।

সুপর্ণার অভিযোগ, স্বামীর মৃত্যুর পর থেকেই নানা রহস্য দানা বাঁধে। কীভাবে গুলি লেগেছিল, তা এখনও পরিষ্কার নয় চক্রবর্তী পরিবারের কাছে। তাঁর প্রশ্ন, একজন মন্ত্রীর বিশ্বস্ত দেহরক্ষী হয়েও কেন অ্যাম্বুলেন্স পেতে দেরি হল? শুক্রবার সকালে এই সমস্ত অভিযোগ নেই কাঁথি থানায় একটি এফআইআর দায়ের করলেন সুপর্ণা।

মৃত্যু রহস্যজনক বলে মনে হতেই পারে পরিবারের। কিন্তু তাই বলে প্রায় তিন বছর পর ঘটনাটি নিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ কেন? সুপর্ণা দাবি, স্বামীর মৃত্যু প্রথম থেকেই রহস্যজনক। কিন্তু যেহেতু শুভেন্দু অধিকারী প্রভাবশালী ব্যক্তি, আর ওই সময় রাজ্যের মন্ত্রী থাকাকালীন তার প্রভাব ছিল দ্বিগুণ। ফলে সাহস জুগিয়ে উঠতে পারেননি।

কিন্তু বর্তমানে পরিস্থিতি বদলে গিয়েছে, এখন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু। খানিক প্রভাবও কমেছে তাঁর। তাই সাহস করে অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ সূত্রে খবর, মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে নন্দীগ্রামের বিজেপির বিধায়ক শুভেন্দুকে জেরা করতে পারে পুলিশ।

সূত্র : এই মুহুর্তে

আরও পড়ুন ::

Back to top button