খেলা

বিশ্বকে স্বাগত জানানোর জন্য প্রস্তুত টোকিও

গোটা এক মাস ফুটবলে বুঁদ ছিল বিশ্ব। একপাশে ইউরো, আরেকপাশে কোপা আমেরিকা, যার উত্তাপ ফাইনাল অবধি বাড়ে কয়েকগুণ। কেননা, ১৪ বছর পর বড় কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে অংশ নেয় ফুটবলের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশ ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা।

যেখানে ব্রাজিলকে হারিয়ে ২৮ বছর পর শিরোপা উৎসব করে আলবিসেলেস্তেরা। অন্যদিকে, ইউরোর ফাইনালে ওঠা ইতালি আর ইংল্যান্ড ম্যাচও দারুণ জমে। নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলের ড্রয়ের পর টাইব্রেকারে ইংল্যান্ডের স্বপ্ন ভেঙে ৫৩ বছর পর ইউরো ঘরে তোলে ইতালি। এমন টানটান উত্তেজনার আসর শেষ না হতেই দুয়ারে আরেক ক্রীড়াযজ্ঞ টোকিও অলিম্পিক। করোনার কারণে এক বছর পিছিয়ে ২৩ জুলাই থেকে শুরু হতে যাচ্ছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের এই মর্যাদার আসর।

ফুটবলে নেই ইতালি-ইংল্যান্ড

ক’দিন আগে তারা বিশ্বের বাঘা বাঘা দলকে টক্কর দিয়ে ইউরোর ফাইনালে ওঠে। এবার সেই দুই দেশ ছাড়া অলিম্পিকের ফুটবল দেখতে হবে। বাছাই পরীক্ষায় পাস না করায় এবার অলিম্পিক খেলা হচ্ছে না তাদের। এদিকে কনমেবল অঞ্চল থেকে থাকছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। তারা নিজেদের বাছাই পরীক্ষায় পাস মার্কস তুলেছিল। যেখানে প্রথম হয় আর্জেন্টিনা আর দ্বিতীয় ব্রাজিল। তবে ইতালির না থাকাটা দুর্ভাগ্যের। তারা স্পেনের সমান ছয় পয়েন্ট তুলেও হেড টু হেড গোল ব্যবধানে বাদ পড়ে।

অথচ অলিম্পিকে তাদের অতীত রেকর্ড বেশ ঝলমলে। ১৯০০ সাল থেকে মোট আটবার তাদের ফুটবল দল অলিম্পিকে অংশ নেয়, যার মধ্যে স্বর্ণপদক জেতে তারা তিনবার। ইতালির ঝুলিতেও সাফল্য আছে। ১৯৩৬ সালে অলিম্পিকে চ্যাম্পিয়ন হয় ইতালি। তার আগে ১৯২৭-২৮ সালে তৃতীয় হয়। এছাড়া ২০০৩-০৪ অলিম্পিকেও তারা তৃতীয় হয়েছিল ফুটবলে।

তিনবারের চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড আর একবারের চ্যাম্পিয়ন ইতালি না থাকায় ইউরোপ থেকে এবার অলিম্পিকে চোখ খাকবে স্পেন, জার্মানি ও ফ্রান্সের ওপর। সাবেক এই তিন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অলিম্পিককে পরীক্ষা-নিরীক্ষার মঞ্চ হিসেবেও কাজে লাগাতে চায়। কাতার বিশ্বকাপ সামনে রেখে অলিম্পিক দল থেকে কয়েকজন ফুটবলার তুলে আনাই তার প্রধান লক্ষ্য।

২২ জুলাই অলিম্পিকের ফুটবল ইভেন্ট থেকে মাঠে নামছে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, ফ্রান্স, জার্মানি ও স্পেন। রিও অলিম্পিকের পদকজয়ী ব্রাজিল-জার্মানি একে অপরের মুখোমুখি হবে যাত্রাদিনে। ‘ডি’ গ্রুপের কঠিন লড়াইয়ে তারা নামবে ইয়োকোহামা স্টেডিয়ামে।

আর্জেন্টিনার প্রথম প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া। ‘সি’ গ্রুপে থাকা আর্জেন্টিনার জন্য আরেক কঠিন প্রতিপক্ষ স্পেন। এদিকে গ্রুপ ‘এ’-তে থাকা স্বাগতিক জাপানকে দিতে হবে দক্ষিণ কোরিয়া ও ফ্রান্স পরীক্ষা। ১৯৮৪ সালের অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জেতা ফরাসিরা এবারও তুমুল ফেভারিট।

গত কয়েক বছর এমবাপ্পে-ডেম্বেলেদের উঠে আসার মধ্য দিয়ে সেটি এরই মধ্যে প্রমাণিত। এবারও তারা অলিম্পিকে চমক দেখাতে মরিয়া। অর্জনের ঘর শূন্য থাকলেও একই গ্রুপে থাকা মিসরও এবার ঝলক দেখাতে পারে টোকিও অলিম্পিকের ফুটবল ইভেন্টে। তেমনটা হলে আবার ফ্রান্স, মেক্সিকো, জাপানের জন্য টেনশনের।

জাপানিদের অভয় দিলেন অলিম্পিক প্রধান

করোনার ভয়ংকর দাপটের মাঝে অলিম্পিকের মতো মহা আসর জাপানে হোক, সেটা কিছুতেই চায় না দেশটির সিংহভাগ মানুষ। বারবার জরিপে তারা এই মতটাই দিয়েছে। তবু নাছোড়বান্দা দেশটির অলিম্পিক আয়োজকরা। এক বছর পিছিয়ে গেলেও আর থেমে থাকতে চায় না তারা।

যেখানে দর্শক নিয়ে এরই মধ্যে ইউরোর ফুটবল উপভোগ করল বিশ্ব, সেখানে অলিম্পিক করতে কী সমস্যা, তাও আবার দর্শকহীন। তারপরও অলিম্পিক প্রধান থমাস বাখ বলছেন, কোনোরকম ঝুঁকি নিয়ে কেউ জাপানে আসবে না। বেশিরভাগই করোনার টিকা দেওয়া। তাই জাপানিদের নিশ্চিন্ত থাকতেই বলেছেন তিনি, ‘আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি, জাপানের মানুষদের কথা দিচ্ছি, যাতে কোনোরকম ঝুঁকিতে না পড়ে তারা, আমরা এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে দিনরাত যুদ্ধ করে যাচ্ছি।’

শরণার্থী দলে করোনার হানা

অলিম্পিকে অংশ নিতে যাওয়া শরণার্থী দলে করোনা হানা দিল। টোকিও যাত্রার আগে কভিড টেস্ট করানো হলে তাদের এক অফিসিয়ালসের রেজাল্ট পজিটিভ আসে। তাতেই বিপাকে পুরো দল। আটকে গেল তাদের অলিম্পিক যাত্রা। বুধবার এক বার্তায় যেমনটা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি, ‘পুরো দলের খেলোয়াড় ও স্টাফদের করোনা টেস্ট করানো হলে একজনের শরীরে এই ভাইরাসের অস্তিত্ব মেলে। তাকে দ্রুত আইসোলেশনে নিয়ে যাওয়া হয়। সে জন্য দলটির টোকিও যাত্রায় দেরি হচ্ছে।’

# আট জোড়া ভাইবোন অলিম্পিক মানেই নতুন কিছু। প্রতিবারই এই প্রতিযোগিতায় দেখা যায় অবাক করা কিছু গল্পের। আসর শুরুর আগে এবার গ্রেট ব্রিটেন যেন তারই উদাহরণ। তাদের এবারের অলিম্পিক দলে জোড়া ভাইবোনের অভাব নেই। সবমিলে আট জোড়া ভাইবোন অংশ নেবেন টোকিওর ভিন্ন ভিন্ন ইভেন্টে। রয়েছেন তিন যমজ অ্যাথলেটও।

যেমনটা জানিয়েছে ইংলিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মিরর। এক প্রতিবেদনে তারা দাবি করেছে, জিমন্যাস্টিক, রোয়িং, সুইমিং, বক্সিং, অ্যাথলেটিকস ও সাইকেলিং ইভেন্টে এই আট জোড়া ভাইবোন গ্রেট ব্রিটেনের পতাকা বহন করবেন।

আরও পড়ুন ::

Back to top button