রাজনীতিরাজ্য

রাজ্যে বর্তমানে বেকারত্বের হার ২২ শতাংশ, চাকরি চাইলে মেলে পুলিশের লাঠি, কটাক্ষ দিলীপের

ভবানী ভবনের সামনে রাজ্য পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরি প্রার্থীদের তুমুল বিক্ষোভ দেখা যায় সোমবার দুপুরে। বিক্ষোভ থামাতে পথে নামে কলকাতা পুলিশ। চাকরিপ্রার্থীদের দিকে লাঠি উঁচিয়ে তেড়ে যাওয়া হয় বলে অভিযোগ। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এদিন দিল্লি থেকে রাজ্য সরকারের সমালোচনায় সরব হলেন বাংলা বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

এদিন রাজধানীতে বসে সাংবাদিকদের দিলীপবাবু বলেন, ভবানী ভবনে চাকরিপ্রার্থীরা চাকরি চাইতে গেছে। পুলিশ তাদের লাঠি পেটা করেছে। লাঠি নিয়ে তাড়া করেছে। এ প্রসঙ্গে নারদা কাণ্ডের কথা টেনে তিনি বলেন, মাস দুয়েক আগে আমরা দেখেছিলাম কিছু দাগী মন্ত্রীকে ধরা হয়েছিল। সেসময় সিবিআই অফিসের বহু লোকের সমাবেশ হয়েছিল।

বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হলেও পুলিশকে তখন আমরা লাঠিপেটা করতে দেখিনি। বরং সহযোগিতাই করেছিল পুলিশ। পশ্চিমবঙ্গে পুলিশের ভূমিকা খুবই বিচিত্র বলেও কটাক্ষ করেছেন দিলীপ বাবু। তাঁর কথায়, চাকরি চাইতে গেলে এখানে লাঠিপেটা করা হয়। রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি পদে শূন্যতার তালিকাও এদিন তুলে ধরেছেন দিলীপ ঘোষ। জানিয়েছেন, ৫ লক্ষ সরকারি পদ খালি আছে। কিন্তু চাকরিতে নিয়োগ হচ্ছে না। এর মধ্যে শিক্ষকের পদ খালি আছে ৮৭ হাজার।

কলকাতা পুলিশের ৮৫ হাজার, পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ ৭৫ হাজার, লাইব্রেরিয়ান ৩ হাজার ৭০০, দমকলে ৬ হাজার ৩০০, গ্রুপ ডি ১ লক্ষ ৩৯ হাজার, খাদ্য দফতরে ১২ হাজার, হাসপাতালে স্থায়ী কর্মীর ২৩ হাজার পদ খালি আছে। রাজ্যে বর্তমানে বেকারত্বের হার ২২ শতাংশ বলেও দাবি করেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি।

তিনি বলেন, কথায় কথায় বিজেপি শাসিত রাজ্যের তুলনা টানা হয় পশ্চিমবঙ্গে। বেকারত্বে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গ ওইসব রাজ্যের চেয়ে এগিয়ে আছে। অসমে বেকারত্বের হার ০.৬ শতাংশ, উত্তরপ্রদেশে ৪.৮ শতাংশ, ত্রিপুরায় ৯.৬ শতাংশ। বাম শাসিত কেরলের বেকারত্বের হারও (২৬ শতাংশ) মনে করিয়ে দিয়েছেন দিলীপ বাবু। পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, পেগাসাসের মতো বিতর্ককে হাতিয়ার করে যখন বিজেপির বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছে তৃণমূল, তখন রাজ্যে বেকারত্ব নিয়ে পাল্টা আক্রমণ শানালেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি।

সূত্র : দ্য ওয়াল

আরও পড়ুন ::

Back to top button