জাতীয়

স্মৃতি ইরানি সম্পর্কে অশ্লীল মন্তব্য, উত্তরপ্রদেশে গ্রেফতার অধ্যাপক

সোস্যাল মিডিয়া পোস্টে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি সম্পর্কে অসম্মানজনক মন্তব্যের অভিযোগে ফিরোজাবাদের আদালতে আত্মসমর্পণ করে অন্তর্বর্তী জামিন চেয়েও পেলেন না। আর্জি খারিজ করে আদালত জেলে পাঠাল শাহরিয়ার আলি নামে উত্তরপ্রদেশের এক অধ্যাপককে। চলতি বছরে আগেই এসআরকে কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রধান এই অধ্যাপককে ফেসবুক পোস্টে কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশুকল্যাণমন্ত্রী সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্যের জন্য কলেজ থেকে সাসপেন্ড করা হয়।

এ মাসেই সুপ্রিম কোর্ট শাহরিয়ারকে গ্রেফতারির হাত থেকে সুরক্ষা দিতে অস্বীকার করে। তাঁর আবেদন নাকচ করে বিচারপতি সঞ্জয় কিষাণ কাউল, বিচারপতি হেমন্ত গুপ্তার বেঞ্চ শাহরিয়ারের আবেদন বাতিল করে জানিয়ে দেয়, অন্যদের মানহানি করতে সোস্যাল মিডিয়ার ব্যবহার করা যাবে না।

সোস্যাল মিডিয়ায় অন্যের সমালোচনা, কটাক্ষ, বিদ্রুপের সময় ভাষার ব্যাপারে লোকজনের সতর্ক থাকা উচিত। তার আগে এলাহাবাদ হাইকোর্টও মে মাসে শাহরিয়ারের আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে গ্রেফতারির হাত থেকে সুরক্ষা দিতে অস্বীকার করে। বিচারপতি জে জে মুনির জানিয়ে দেন, প্রফেসরের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করা হয়েছে, এমন কোনও তথ্যপ্রমাণ নেই

মঙ্গলবার শাহরিয়ার অতিরিক্ত দায়রা বিচারক অনুরাগ কুমারের কাছে আত্মসমর্পণ করে অন্তর্বর্তী জামিন চান। কিন্তু বিচারক জামিনের আর্জি নাকচ করেন। জেলে যেতে হয় অধ্যাপককে।

সূত্র: দ্য ওয়াল

আরও পড়ুন ::

Back to top button