জাতীয়

দেশে দ্বিতীয় মহামারি ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার মৃত্যু

শে করোনাভাইরাস অতিমারির মধ্যে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা কালো ছত্রাক সংক্রমণ। ইতোমধ্যে এটিকেও মহামারি ঘোষণা করেছে ভারত সরকার। দেশে এই কালো ছত্রাকের সংক্রমণে কমপক্ষে ৪ হাজার ৩০০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ৪৫ হাজার ৩৭৪ জন। এদের মধ্যে প্রায় অর্ধেকই এখনো চিকিৎসাধীন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানসুখ মান্দাভিয়া এ তথ্য জানিয়েছেন। খবর বিবিসির।

জানা গেছে, বিরল ও বিপজ্জনক এই কালো ছত্রাক সাধারণত নাক, চোখ ও কখনো কখনো মস্তিষ্কে আক্রমণ করে। এতে আক্রান্তদের বেশিরভাগই করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থ হওয়া বা এখনো চিকিৎসাধীন ব্যক্তি।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, করোনার চিকিৎসায় ব্যবহৃত স্টেরয়েডের সঙ্গে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণের যোগসূত্র রয়েছে এবং এতে ডায়াবেটিক রোগীরা বেশি ঝুঁকিতে রয়েছেন।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণ সাইনাস, মস্তিষ্ক ও ফুসফুসের ক্ষতি করে। ডায়াবেটিস, ক্যান্সার এবং এইচআইভি/এইডসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য এটি প্রাণঘাতী হতে পারে।

সরকারি হিসাব অনুসারে, মহারাষ্ট্র, গুজরাট, তামিলনাড়ু ও রাজস্থানে সবচেয়ে বেশি ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে শুধু মহারাষ্ট্র এবং গুজরাটেই ১ হাজার ৭৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণ বা মিউকরমাইসিসের বেশ কয়েকজন রোগীর চিকিৎসা করেছেন বেঙ্গালুরু-ভিত্তিক সার্জন ডা. রঘুরাজ হেগড়ে। তিনি বিবিসি’কে জানিয়েছেন, এই অসুখে আক্রান্ত এবং মৃতদের সংখ্যা অনেক কম গণনা করা হচ্ছে। এর জন্য তথ্য সংগ্রহে অপর্যাপ্ত ব্যবস্থাকে দায়ী করেছেন এ চিকিৎসক।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের পাশাপাশি ভারতে করোনাভাইরাসের প্রলয়ও অব্যাহত রয়েছে। সরকারি হিসাব বলছে, দেশে এপর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৪ লাখ ১৮ হাজার ৪৮০ জনের। আর আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ১২ লাখ ১৬ হাজার ৩৩৭ জনে।

আরও পড়ুন ::

Back to top button