রাজনীতিরাজ্য

রাজনীতি ছাড়ছেন বাবুল সুপ্রিয়, জানালেন ফেসবুক পোস্টে

Babul Supriyo : রাজনীতি ছাড়ছেন বাবুল সুপ্রিয়, জানালেন ফেসবুক পোস্টে - West Bengal News 24

রাজনীতি ছাড়তে চলেছেন বাবুল আসানসোলের BJP সাংসদের বিস্ফোরক ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে তোলপাড় রাজ্য রাজনৈতিক মহল। শনিবার একটি ফেসবুক পোস্টে বাবুল সুপ্রিয় লেখেন, ‘চললাম, অলভিদা…সবার সব কথা শুনলাম – বাবা, (মা) স্ত্রী, কন্যা, দুএকজন প্রিয় বন্ধুবান্ধব.. সবটুকু শুনে বুঝেই অনুভব করেই বলি, অন্য কোন দলেও যাচ্ছি না।

তৃণমূল, কংগ্রেস, CPIM কোথাও নয় – কনফার্ম করছি, কেউ আমাকে ডাকেওনি, আমিও কোথাও যাচ্ছি না । আমি একটি টিম প্লেয়ার। সবসময় শুধু মোহন বাগানকে সমর্থন করেছি। আর রাজনৈতিক দল বলতে শুধু BJP-কে। ‘

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর থেকেই একাধিকবার তাঁর বিভিন্ন পোস্টকে কেন্দ্র করে তৈরি হয়েছিল রাজনৈতিক জল্পনা। তিনি রাজনীতি ছাড়তে চলেছেন, এই জল্পনা নিয়েও রাজ্য রাজনীতিতে বিস্তর জলঘোলা হয়। এবার এই যাবতীয় জল্পনার মধ্যেই নিজের বক্তব্য স্পষ্ট করেছেন এই সাংসদ।

বাবুল আরও লিখেছেন, ‘Social Work করতে গেলে রাজনীতিতে না থেকেও করা যায় – নিজেকে একটু গুছিয়ে নিই আগে তারপর… ‘। রাজনীতি ছাড়ার জন্য তিনি বেশ কিছুবার দিল্লির BJP নেতৃত্বের কাছে দরবার করেছেন তাও এই পোস্টে স্পষ্ট করেছেন।

তিনি লিখেছেন, ‘ বিগত কয়েকদিনে বার বার মাননীয় অমিত শাহ ও মাননীয় নাড্ডাজির কাছে রাজনীতি ছাড়ার সংকল্প নিয়ে গেছি এবং আমি ওঁদের কাছে চিরকৃতজ্ঞ যে প্রতিবারই ওঁরা আমাকে নানাভাবে অনুপ্রাণিত করে ফিরিয়ে দিয়েছেন। বিশেষ করে ‘আমার আমি’ কী করতে চায়, তা যখন আমি অনেকদিন আগেই ঠিক করে ফেলেছি।’

মন্ত্রিত্ব যাওয়ার জন্যই কি এই সিদ্ধান্ত? সেই প্রশ্নেরও উত্তর দিয়েছেন বাবুল। তিনি জানান, প্রশ্ন উঠবেই কেনই বা রাজনীতি ছাড়তে গেছিলাম? মন্ত্রিত্ব চলে যাওয়ার সাথে তার কি কোনো সম্পর্ক আছে? হ্যাঁ আছে – কিছুটা তো নিশ্চয় আছে ! তঞ্চকতা করতে চাই না। তাই সে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে গেলেই তা সঠিক হবে-আমাকেও তা শান্তি দেবে ।’

রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে মতান্তরের বিষয়টিও গোপন করেননি বাবুল। পোস্টে তিনি লেখেন, ‘ভোটের আগে থেকেই কিছু কিছু ব্যাপারে রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে মতান্তর হচ্ছিল – তা হতেই পারে।কিন্তু তার মধ্যে কিছু বিষয় জনসমক্ষে চলে আসছিল…।’

পাশাপাশি বাবুল লিখেছেন, ‘বহু নতুন মন্ত্রী এখনো সরকারি বাড়ি পাননি। তাই আমার বাড়িটি আমি এক মাসের মধ্যে (যত তাড়াতাড়ি সম্ভব – হয়তো তার আগেই) ছেড়ে দেবো। না, মাইনেও আর নেব না।’ অর্থাৎ তিনি যে রাজনীতি থেকে সন্ন্যাস নিচ্ছেন তা একপ্রকার স্পষ্ট করে দিয়েছেন এই রাজনীতিবিদ।

এদিন এই পোস্টের সঙ্গে হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের ‘এক গোছা এক গোছা রজনীগন্ধা’ গানটিও পোস্ট করেন তিনি, যা অত্যন্ত ইঙ্গিতপূর্ণ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

সূত্র: এই সময়

আরও পড়ুন ::

Back to top button