অপরাধমালদা

গলায় ছুরি ঠেকিয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ, প্রাণে মারার হুমকি

প্রতীকি ছবি

দেশে এখনো নারী, শিশু কন্যা যে কী প্রবলভাবে নির্যাতিত হয়ে চলেছে তার সীমা নেই। এই হুমকি, এই ব্ল্যাকমেইল করে ধর্ষণ, হত্যা টানা ঘটে চলেছে! সদ্য জন্ম হওয়া শিশু সন্তান থেকে ৯০ বছরের বৃদ্ধা বাদ নেই কেউ।

এবার অষ্টম শ্রেণীর এক কিশোরী প্রতিবেশি যুবকের বিকৃতি যৌন লালসার শিকার হয়েছে। মালদহে যুবকের লালসার শিকার ঐ কিশোরী। গলায় ছুরি ঠেকিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ করা হয়েছে, অভিযোগ নির্যাতিতার।এমনকি হুমকিও দেয় ঐ বিকৃত মানসিকতার যুবক। এ ব্যাপারে যদি সে মুখ খোলে তাহলে প্রাণে মেরে ফেলা হবে। প্রচণ্ড মানসিক যন্ত্রণা দিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ করেছে কাপুরুষ যুবক।

শুধু তাই নয়, রাজনৈতিক মহলে অভিযুক্তের ওঠাবসা থাকায় গ্রামে মেয়েটির পরিবার একঘরে হয়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ। কী মারাত্মক অবস্থার মধ্যে পড়ে পরিবারটি, তা অনুমেয়। ঘটনা মালদহের হরিশচন্দ্রপুরের। গত ২১ ফেব্রুয়ারি প্রতিবেশী যুবক মেয়েটিকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ।

আর জানা গিয়েছে, অভিযুক্তের দিদিই ঐ কিশোরীকে গল্প করবে বলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর দিদার বাড়ি যাওয়ার ছুতোয় বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। কিশোরীর দাবি অনুযায়ী, এরপরই ভয়াবহ ঘটনাটি ঘটে। তার পরই অন্য ঘর থেকে বেরিয়ে এসে গলায় ছুরি ঠেকিয়ে অভিযুক্ত ঐ যুবক কিশোরীকে ধর্ষণ করে। এবং হুমকি দিতে থাকে। এই কথা প্রকাশ করলে মেরে ফেলা হবে।

ভয় দেখিয়ে জোরজবরদস্তি মেয়েটিকে এভাবে রেপ করা হয়েছে। এমনকি ঘটনায় অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। কিন্তু অভিযুক্তের হাত রয়েছে। ফলে ধর্ষক পুরুষকে শাস্তি দেয়া তো দূরের কথা গ্রামের কিছু প্রভাবশালী এবং তৃণমূলের লোকজন সালিশি সভায় বিষয়টি ধামাচাপা তথা মিটিয়ে নেয়ার জন্যে চাপ দেন বলে অভিযোগ নির্যাতিত পরিবারের।

একটি মেয়ে ধর্ষিতা হয়েছে, কোথায় ধর্ষকের কঠোর সাজা হবে; তা নয় বরং তাঁদের উপর চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। হরিশচন্দ্রপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন নির্যাতিতার মা। তবে ধর্ষক যুবক পালিয়ে গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে। ইতিমধ্যে পুলিশ তল্লাশি শুরু করেছে।

পশ্চিমবঙ্গ নয় শুধু গোটা ভারতে মেয়েরা কতটুকু সুরক্ষিত? উত্তরপ্রদেশে তো হর হামেশা এই ঘটনাগুলো ঘটছে। কোথায় শাস্তি, কোথায় কী? অসমেও এখন মাঝেমধ্যেই শোনা যাচ্ছে এমন সব পুরুষের জঘন্য কীর্তিকাণ্ড! কোথাও বাবা মেয়েকে রেপ করছে, আবার কোথাও কাকা, জ্যাঠা।

মেয়েরা যাবে কোথায়? প্রশাসন, সরকার এত নীরব ভূমিকায় কেন? এদিকে নারীর সুরক্ষার দিক কীভাবে নিশ্চিত হবে সে চিন্তা না করে মালদহের ঘটনা তৃণমূল, বিজেপি একে অপরের উপর দোষ চাপাচ্ছে। এ বলছে আমরা নই, আমরা প্রশ্রয় দেই না– ও বলছে আমরা নই। আমরা প্রশ্রয় দেই না! তাহলে কে? মেয়েদের শরীর, মন কী বাজারের কেনা পণ্য? প্রশ্ন বারবার!

আরও পড়ুন ::

Back to top button