জাতীয়

সোশ্যাল মিডিয়ায় দিল্লির নির্যাতিতার বাবা-মায়ের ছবি পোস্ট! বিপাকে রাহুল গান্ধী

আইন ভেঙেছেন রাহুল গান্ধী। এমনই অভিযোগ করেন বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র সম্বিত পাত্র। সম্বিত পাত্র অভিযোগ করেন যে দিল্লির নঙ্গলে ধর্ষিত এবং খুন হওয়া নাবালিকার পরিচয় প্রকাশ করে দিয়েছেন রাহুল গান্ধী। সম্বিত পাত্রর অভিযোগ পকসো আইনের ৭৪ নম্বর ধারা ভঙ্গ করেছেন রাহুল গান্ধী। উল্লেখ্য, এদিন দিল্লি ধর্ষণ কাণ্ডে নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যান রাহুল গান্ধী। সেখানে তাঁর সঙ্গে সংবাদমাধ্যমেরও অনেকে ছিলেন। এই সফর নিয়েই প্রশ্ন তোলেন সম্বিত পাত্র।

এদিকে এদিন মৃতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখেও পড়তে হয় রাহুল গান্ধীকে। স্থানীয় বাসিন্দাদেরই একাংশ তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। তাঁদের অভিযোগ ছিল, এই এলাকার যিনি কাউন্সিলর, তিনিও কংগ্রেসেরই সদস্য। কিন্তু ঘটনার পর ২৪ ঘণ্টারও বেশি কেটে গেলেও মৃতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার সময় পাননি তিনি।

এদিকে, সোমবারের ওই মর্মান্তিক ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরই এ নিয়ে টুইট করেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ ও তাঁর মন্ত্রককেই দায়ী করেন তিনি। পরে টুইটারে ঘটনা নিয়ে সরব হন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও।

এদিকে, দিল্লির এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত স্থানীয় শ্মশানের পুরোহিত পণ্ডিত রাধেশ্যামকে ইতিমধ্যেই হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। ডিসিপি (দক্ষিণ-পশ্চিম) প্রতাপ সিং জানিয়েছেন, অভিযুক্তের শরীর এবং বাড়ি থেকে প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

রাধেশ্য়ামের দাবি, শ্মশানের ওয়াটার কুলার থেকে জল নেওয়ার সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় 9 বছরের বালিকার। তাঁর সেই দাবি আদৌ সত্যি কিনা, তা যাচাই করে দেখতে ওয়াটার কুলারটি পরীক্ষা করে দেখছেন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। সেই রিপোর্ট হাতে এলে তদন্তে সুবিধা হবে। এছাড়া, ওই নাবালিকার দেহাবশেষের ময়নাতদন্তও করা হয়েছে। তবে দেহের অধিকাংশ অংশই পুড়ে যাওয়ায় মেয়েটির মৃত্য়ুর কারণ নিয়ে নিশ্চিত হতে পারছেন না চিকিৎসকরা।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

আরও পড়ুন ::

Back to top button