বলিউড

১৭ বছর কথা বলেননি দুজন, শেষশয্যার পাশে তবু তিনি ছিলেন

জয়ন্ত চক্রবর্তী

Rajesh Khanna and Anju Mahendru Love Story : ১৭ বছর কথা বলেননি দুজন, শেষশয্যার পাশে তবু তিনি ছিলেন - West Bengal News 24

১৯৪২ সালে অমৃতসরে জন্ম যতীন খান্নার। যতীন যে একদিন রাজেশ হয়ে গোটা ভারত মাতিয়ে দেবে কেউ কি কখনও ভেবেছিল? ১৯৬৬ সালে আখরি খত ছবিতে প্রথম অভিনয় এবং ফ্লপ। ১৯৭১-এ হাতি মেরা সাথী রাজেশকে ভারতের সুপারস্টার করে। তার আগেই মডেল, অভিনেত্রী অঞ্জু মাহেন্দ্রর সঙ্গে প্রেমের বন্ধনে জড়িয়েছেন রাজেশ।

অঞ্জু তখন স্ট্রাগল করছেন। রাজেশ তারকা। রাজেশের সাহায্যের হাত এগিয়ে এলো অঞ্জুর দিকে। বলিউডে অঞ্জুর পরিচয় তখন রাজেশ খান্নাস গার্ল বলে। যৌবনের কড়া নাকাড়া তখন বেজে উঠেছে। দুজনে লিভ ইন শুরু করলেন। কাকা অর্থাৎ রাজেশ খান্নার প্রেমে মত্ত ভারতের মহিলাকুল। রাজেশ মত্ত অঞ্জুকে নিয়ে।

কিন্তু, দুজনের সংঘাতের সূত্রপাত দুজনেরই ফুলে ফুলে মধু খাওয়াকে কেন্দ্র করে। রাজেশের অসংখ্য বান্ধবী, অঞ্জুরও তাই। রাজেশ তবু বিয়ে করতে চান অঞ্জুকে। অঞ্জু নারাজ। কারণ, বিয়ের পর ক্যারিয়ার নয়- রাজেশের সাফ ফরমান। অঞ্জু রাজি নন। সংঘাতের আর একটি কারণ দুজনের মা। রাজেশের অভিযোগ, অঞ্জু তার মায়ের সঙ্গে সময় কাটান না।

অঞ্জুর অভিযোগ, রাজেশ অঞ্জুর মাকে সম্মান করেন না। এই প্রেক্ষিতে ওয়েস্টইন্ডিজ ক্রিকেট দল ভারত সফরে এলো। এক পার্টিতে অঞ্জু আর ক্যারিবিয়ান ক্যাপ্টেন গারফিল্ড সোবার্স এর দেখা। সেই রাতেই বিছানায়। সোবার্স এর বন্য কামে আপ্লুত অঞ্জু। রাজেশের সঙ্গে সাত বছরের লিভ ইন সম্পর্ক ভাঙলো।

পরের বছরই রাজেশ বিয়ে করলেন ডিম্পল কাপাডিয়াকে। বলা হয়ে থাকে রাজেশের নির্দেশে বারাত গিয়েছিল অঞ্জুর বাড়ির সামনে দিয়ে।
পরের ১৭ বছর বাক্যালাপ ছিল না রাজেশ অঞ্জুর।

কিন্তু, ২০১২ সালে রাজেশের মৃত্যুর দিনটিতে রাজেশের পাশে ছিলেন এই অঞ্জুই। ডিম্পল রাজেশকে ছেড়ে গেছেন, সোবার্স অঞ্জুর জীবনে ক্ষণিকের স্মৃতিমাত্র। হুইল চেয়ারে করে অঞ্জু যখন রাজেশকে হাসপাতালে নিয়ে যেতেন তখন বোঝা যেত, প্ৰেম সত্যিই অনির্বাণ। স্মৃতি জ্বলে পুড়ে খাক হয়ে যায়। বেঁচে থাকে প্ৰেম। যে প্রেমে দহন নেই, যে প্ৰেম শান্তির প্রলেপ বুলিয়ে যায়।

আরও পড়ুন ::

Back to top button