জাতীয়

কাশ্মীরের সঙ্গে পারিবারিক যোগ আমার, পূর্ণ রাজ্যের মর্যাদা ফেরাতে হবে : রাহুল গান্ধী

দুদিনের জম্মু ও কাশ্মীর সফরে রাহুল গাঁধী। দলীয় কর্মীদের সভায় ভাষণ দেন তিনি। শ্রীনগরের সভায় রাহুল কেন্দ্রশাসিত এলাকায় পরিণত জম্মু ও কাশ্মীরের পূর্ণ রাজ্যের মর্যাদা ফেরানোর দাবি করেন। সেইসঙ্গে সেখানে অবাধ, বৈধ নির্বাচনও চান। ঘৃণা, বিদ্বেষের বিরুদ্ধেই কংগ্রেসের লড়াই, যার জন্য আমরা বাকিদের থেকে আলাদা, এমন মন্তব্যও করেন কংগ্রেস নেতা।

প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি এমন সময় জম্মু কাশ্মীর সফরে বেরলেন, যখন একদিকে সেখানে ক্রমশঃ হিংসা মাথাচাড়া দিচ্ছে, অন্যদিকে ডিলিমিটেশন প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ করে নির্বাচন করাতে চাইছে কেন্দ্র। গত ৫ আগস্ট নরেন্দ্র মোদী সরকারের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা বাতিলের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি হল।

সেখানে উন্নয়নে গতি এসেছে বলে দাবি কেন্দ্রের, যা মানতে নারাজ দেশের বিরোধী শিবির, জম্মু ও কাশ্মীরের মূল স্রোতের রাজনৈতিক দলগুলিও। ঘটনা হল, ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর রাহুলের এটাই প্রথম কাশ্মীর সফর। মঙ্গলবার সকালে সেখান ক্ষীর ভবানি মন্দিরে পুজো দেন, হজরতবাল মসজিদেও প্রার্থনা করেন রাহুল। সেখান থেকে বেরিয়ে শ্রীনগরে কংগ্রেসের একটি পার্টি অফিসেরও উদ্বোধন করেন।

কেন্দ্রের কাশ্মীর নীতির কঠোর সমালোচনা করে রাহুল জম্মু ও কাশ্মীরের সঙ্গে নিজের পারিবারিক যোগসূত্রের উল্লেখ করেন রাহুল। বলেন, আমাদের পরিবার দিল্লিতে থাকে, তার আগে থাকত এলাহাবাদে, তারও আগে কাশ্মীরে। আমিও কাশ্মীরিয়তে বিশ্বাস করি। তার খানিকটা স্রোত আমার শিরা-ধমনীতেও বইছে। সেইসঙ্গে দাবি করেন, আমরা ভালবাসা, বোঝাপড়া দিয়ে ভিন্ন পথে কাশ্মীর সমস্যা মেটানোর চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু বিজেপি সব ভাল কাজ নষ্ট করে দিয়েছে। আমরা জানি, জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষ আঘাত পেয়েছেন।

আমি ভালবাসা, অনুভবের বোঝাপড়া চাই। আপনাদের পাশে থাকব। রাজ্যের মর্যাদা পুনরুদ্ধারে আপনাদের জন্য লড়ব। জম্মু, লাদাখেও যাব। এটা সবে সূচনা। দু বছর আগে বিমানবন্দরে আমায় আটকে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আমি বারবার আসব। কংগ্রেসের সভামঞ্চে রাহুলের সঙ্গে ছিলেন দলের প্রবীণ নেতা গুলাম নবি আজাদও,যিনি কাশ্মীরেরই। তিনিও ৫ আগস্টের নজিরবিহীন কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা করে বলেন, ১৬৫০০ লোককে বন্দি করা হয়েছে, এমনকী প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীরাও রেহাই পাননি।

আজাদ ফের জানান, একমাত্র পৃথক রাজ্যের মর্যাদা পুনরুদ্ধারের পরই জম্মু ও কাশ্মীরে নির্বাচন হতে পারে এবং এটা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাতের সময় জম্মু ও কাশ্মীরের নেতারা জানিয়েও দিয়েছেন। আজাদ বলেন, উত্তরাখন্ড, হিমাচল প্রদেশ জম্মু ও কাশ্মীরের চেয়ে আয়তনে ছোট হলেও রাজ্য।

আমাদের জমির অধিকার দিয়েছিলেন, নিশ্চিত করেছিলেন মহারাজা হরি সিং। বেকারি খুব বেড়েছে, শিল্প, কলকারখানা স্তব্ধ। সংসদের বর্তমান অধিবেশনের তিনদিন বাকি। কেন্দ্র জম্মু কাশ্মীরকে আবার রাজ্য করতে পারে, শুধু একটা বিল পাশ করতে হবে, যা মাত্র ৫ মিনিটের ব্যাপার।

সূত্র : দ্য ওয়াল

আরও পড়ুন ::

Back to top button