পশ্চিম মেদিনীপুর

মাস্টার প্ল্যান নিয়ে বার বার বলেছি, কেন্দ্র গুরুত্ব দেয়নি, ঘাটালের জলে দাঁড়িয়ে মমতা

কয়েক দিন লাগাতার বৃষ্টি এবং পরবর্তী ক্ষেত্রে ডিভিসির জল ছাড়ার জেরে এখন রীতিমতো বন্যাকবলিত পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা। পরিস্থিতি বেশ খারাপ ঘাটালেও।এর আগে এলাকার পরিস্থিতি পরিদর্শন করে গিয়েছিলেন সাংসদ দেব (Deb)। সে সময় তিনিও বলেছিলেন, মমতা ব্যানার্জি (Mamata Banerjee) প্রধানমন্ত্রী না হলে বোধহয় ঘাটালের মাস্টার প্ল্যান লাগু হবে না। আজ বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে দুপুর বারোটা নাগাদ ঘাটালে পৌঁছান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। সেখানে বন্যাকবলিত মানুষজনের সঙ্গে কথাও বলেন তিনি।

সাংসদ দেবের মতো একই সুর শোনা গেল মুখ্যমন্ত্রীর গলাতেও। সেদিন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এক হাত নিয়ে তিনি বলেন, “আমি দেখে গিয়ে রিপোর্ট তৈরি করব। ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান তৈরি করছে না কেন্দ্র। পরিকল্পিত বন্যা হচ্ছে। মাস্টারপ্ল্যান নিয়ে বারবার বলা হচ্ছে, কেন্দ্র কিছুতেই অনুমোদন দিচ্ছে না।”

সাথে সাথে আজ ও পরিকল্পিত বন্যার অভিযোগ তোলেন তিনি। প্রসঙ্গতonarendra modi, amit shah and Mamata Banerjee tweeted for bengal election শুরু থেকেই ডিভিসির জল ছাড়াকে বন্যার কারণ হিসেবে দেখিয়ে আসছে তৃণমূল। তাদের মতে রাজ্যের সঙ্গে এ বিষয়ে কোনো কথা বলা হয়নি।

এরই সাথে সাথে মমতা এও বলেন, আগামী দিনে ঘাটালের মাস্টার প্ল্যান যাতে বাস্তবায়িত হয় তার জন্য রাজ্যের তরফে কেন্দ্রীয় সেচ মন্ত্রীর কাছে একটি প্রতিনিধি দল পাঠাবেন তিনি। দলে থাকবেন এলাকার সংসদ দেব, রাজ্যের মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র (Soumen Mahapatra) এবং তৃণমূল নেত্রী জুন মালিয়া (June maliya)। আগামী দিনে তারা কেন্দ্রীয় সেচ মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন ঘাটালের বিষয়ে। এদিন যারা বন্যাকবলিত ঘাটাল বাসীর পাশে দাঁড়িয়েছেন। তাদেরও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন তিনি।

ঘাটালে নেমে অনুকূল ঠাকুরের আশ্রমেও যান মুখ্যমন্ত্রী। মন্দিরের বাইরে জড়ো হওয়া বন্যা কবলিত মানুষদের হাতে তুলে দেন। সাথে সাথেই তিনি জানান, “পরিকল্পিত ভাবে বন্যা করা হচ্ছে। ৫০০ কোটি টাকায় চেকড্যামগুলি তৈরি হয়েছে। কিন্তু পরিকল্পনা করে কাজ হচ্ছে না। প্রশাসনকে আরও বেশি কাজ করতে হবে। আরও অনেক ক্যাম্প তৈরি করতে হবে।”

সূত্র : বাংলা হান্ট

আরও পড়ুন ::

Back to top button