অর্থনীতি

Mulmina®-র শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর ক্ষমতা সম্পর্কে ক্লিনিকাল পরীক্ষার ফল ঘোষণা করল জগদালে হেলথকেয়ার

জগদালে ইন্ডাস্ট্রিজ প্রাইভেট লিমিটেডের অংশ জগদালে হেলথকেয়ার সম্প্রতি তাদের জনপ্রিয় হেলথ ড্রিঙ্ক Mulmina®-র এক ক্লিনিকাল পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেছে। এই পানীয় শিশু সমেত সব বয়সের মানুষের পান করার উপযুক্ত। Mulmina® তৈরি হয়েছে প্রাকৃতিক সুপারফুডগুলো দিয়ে এবং একমাত্র পানযোগ্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাবর্ধক, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট পানীয় যা টেট্রা প্যাকে পাওয়া যায়। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে এই পানীয়ের অন্তর্নিহিত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাবর্ধক উপাদানগুলোর কারণে অন্য হেলথ বেভারেজের চেয়ে এটা পান করা ভাল।

চলতি অতিমারীর কারণে ক্রমশ আরও বেশি মানুষ স্বাস্থ্যের প্রতিরোধমূলক সুরক্ষার উন্নততর উপায় খুঁজছেন। সারা পৃথিবীতে কোভিড কেস বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হেলথকেয়ার কোম্পানিগুলো এই রোগ প্রতিরোধ করার এবং সারিয়ে তোলার কার্যকর বিকল্প সন্ধান করছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে, সন্তানকে কোরোনাভাইরাসের সামনে ফেলে দেওয়ার আশঙ্কায় অধীর বাবা-মায়েরা অনেকেই সাধারণ হেলথকেয়ার প্রোটোকলগুলো পালন করতে হয় দেরি করেছেন অথবা এড়িয়ে গেছেন। ফলে তাঁদের শিশুদের সংক্রমণের সম্ভাবনা রয়ে গেছে। হলুদ, আমের সঙ্গে থানকুনি — এরকম আয়ুর্বেদিক ওষুধ যে ৭-১৪ বছরের শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে নিশ্চিত ভূমিকা নেয়, তা এখন ক্লিনিকালি প্রমাণিত।

আরও পড়ুন : অ্যাপোলো হসপিটালসে কোলোরেক্টাল ক্যান্সারের জন্য রোবোটিক অস্ত্রোপচার হওয়া ২৮ বছর বয়সী ডাক্তার জিতলেন সোনার মেডেল

ডাঃ সৌম্য নাগরাজন, কনসালট্যান্ট পেডিয়াট্রিশিয়ান, মাল্লিগে হসপিটাল, বেঙ্গালুরু, বললেন “এই পরীক্ষায় আম, থানকুনি আর হলুদ, অত্যাবশ্যক ভিটামিন ও খনিজ পদার্থের সাথে অ্যান্টিবায়োটিক্স অ্যাডজাংক্ট হিসাবে ব্যবহার করে রেস্পিরেটরি ট্র্যাক্টের সংক্রমণের ভোগা কিছু বাছাই রোগীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টের মাত্রা বাড়তে দেখা গেছে। নিয়মিত ব্যবধানে রক্তের বিশ্লেষণ করে এর প্রমাণ পাওয়া গেছে। নিউট্রাসিউটিকাল প্রোডাক্টগুলো কীভাবে থেরাপিতে অ্যাডজাংক্ট হিসাবে কাজ করতে পারে, তা নিয়ে ভবিষ্যতের পরীক্ষা নিরীক্ষায় এই ফলাফল পথ দেখাবে।”

একটি বিখ্যাত মেডিকাল ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রে, শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণে আক্রান্ত শিশুদের সাধারণ চিকিৎসা প্রোটোকলের সঙ্গে Mulmina® Mango (আম, থানকুনি/সেন্টেলা এশিয়াটিকা আর হলুদের মিশ্রণ) দেওয়ার ফলে, ১৪ এবং ২৮ দিনের সময়কালে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট মার্কার ও ইমিউন মার্কারে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি দেখা গেছে। এই পরীক্ষাগুলোতে আরও প্রমাণ পাওয়া গেছে, যে এই পদ্ধতিতে চিকিৎসায় সি-রিঅ্যাক্টিভ প্রোটিনের (CRP) মত ইনফ্লেমেটরি মার্কারগুলোও কমে যায় এবং মোট অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট ক্ষমতা বেড়ে যায়।

শ্রী রাজেশ জগদালে, চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর – জগদালে ইন্ডাস্ট্রিজ, ইন্ডিয়া, বললেন “আমরা বিশ্বমানের বৈজ্ঞানিকভাবে গবেষণা করে তৈরি প্রোডাক্ট ক্রেতাকে দেওয়ায় বিশ্বাসী। এমন প্রোডাক্ট যা ক্লিনিকালি প্রমাণিত এবং মানুষের সাধারণ জীবনযাত্রার সাথে সহজেই খাপ খেয়ে যেতে পারে। সত্যিকারের জ্ঞান সকলের কল্যাণের জন্যে ভাগ করে নেওয়া উচিত।”

আরও পড়ুন ::

Back to top button