রাজ্য

‘আমফানের রিপোর্ট আইওয়াশ, আমফান দুর্নীতি মামলায় ফের রাজ্যেকে ভর্ত্‍সনা হাইকোর্টের

আমফান দুর্নীাতি মামলায় (amphan relief scam) রাজ্য সরকারের পেশ করা রিপোর্ট আগেই নস্যাত্‍ করে দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট (Calcutta High Court)। নতুন করে রিপোর্ট পেশ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দল এবং বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের এজলাসে সোমবার ওই রিপোর্ট পেশ করে রাজ্য, যা দেখে ডিভিশন বেঞ্চের পর্যবেক্ষণ, মূল বিষয়কে আড়াল করার জন্য এই ধরনের রিপোর্ট দেওয়া হয়েছে। আসলে সবটাই আইওয়াশ।

আমফান ত্রাণ সামগ্রী চুরির মামলায় হাইকোর্টে প্রশ্নের মুখে রাজ্য সরকারের তদন্ত। রিপোর্টে সরকারপক্ষের আইনজীবীর দাবি, ত্রাণ সামগ্রী কিছুই চুরি হয়নি। জেলার পুলিশ সুপার তদন্ত করে দেখছেন। সওয়াল-জবাবের সময় হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ জানায়, সঠিকভাবে কোনও তদন্তই হয়নি। ত্রাণের সামগ্রী লরিতে থাকবে এটা মেনে নেওয়া যায় না। ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দাল মন্তব্য করেন, ‘এসব রিপোর্ট শুধুমাত্র আইওয়াশ করার জন্য দেওয়া হয়েছে’।

আরও পড়ুন : ভবানীপুরে প্রচারে তুমুল উত্তেজনা, দিলীপ ঘোষের উপর হামলার চেষ্টা

তিনি প্রশ্ন করেন, ‘অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ?’ তার কোনও উল্লেখ নেই রিপোর্টে। ২০২০ সালে আমফানের দাপটে উপকূলবর্তী বিভিন্ন জেলা বিপর্যস্ত হয়ে যায়। সেই বিধ্বস্ত এলাকায় ত্রাণ পাঠায় প্রশাসন। কিন্তু সেই ত্রাণ বিলি নিয়ে রাজ্যের শাসক দলের একাংশের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। আলোচ্য মামলাটি উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় ত্রাণ-দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে। বসিরহাট-২ ব্লকের ঘোড়ারস কুলীন গ্রামে পাঁচটি ট্রাকে প্রায় দু’‌কোটি টাকার ত্রাণসামগ্রী পাঠানো হয়েছিল।

গ্রামবাসীরা দাবি করেন,ওই ত্রাণসামগ্রী পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সাম্বিল হোসেনের বাড়ির গুদামে মজুত করা ছিল। সম্প্রতি মালতিপুর স্টেশন সংলগ্ন এলাকা থেকে ২ ট্রাক বোঝাই সামগ্রী উদ্ধার হয়।গ্রামবাসীদের অভিযোগ, ত্রাণ পাচারের ঘটনায় মাটিয়া থানা স্বতঃপ্রণোদিত মামলা করলেও, উপযুক্ত ধারা যোগ করা হয়নি।

সূত্র: দ্য ওয়াল

আরও পড়ুন ::

Back to top button