ওপার বাংলা

পুজো মণ্ডপে কোরান শরিফ: কক্সবাজারে ধৃত ইকবাল এখন কুমিল্লায়

পুজো মণ্ডপে কোরান শরিফ: কক্সবাজারে ধৃত ইকবাল এখন কুমিল্লায় - West Bengal News 24

গতকাল (বৃহস্পতিবার) রাতেই কক্সবাজার থেকে আটক করা হয়েছিল কুমিল্লায় পুজো মন্ডপে পবিত্র কোরান শরিফ রাখার সঙ্গে জড়িত ইকবাল হোসেন সন্দেহে এক যুবককে। তারপর সন্দেহ নিরসন করতে পুলিশ প্রচুর জিজ্ঞাসাবাদ চালায়। আজ কক্সবাজারে আটক সেই ইকবাল হোসেনকে কুমিল্লায় নিয়ে আসা হয়েছে। শুক্রবার স্থানীয় সময় ভোর সাড়ে ছ’টার দিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে কুমিল্লায় নিয়ে আসা হয়েছে ধৃতকে।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহ রফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাতে ইকবাল হোসেনকে সৈকত এলাকায় ঘোরাফেরা করার সময় জেলা পুলিশের একটি দল আটক করে। পরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে নিয়ে এসে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। আজ স্থানীয় সময় ভোর পাঁচটার দিকে কুমিল্লা জেলা পুলিশের একটি টিম কক্সবাজারে পৌঁছয়। তারপর স্থানীয় সময় ভোর সাড়ে ছ’টার দিকে আটক ইকবালকে কুমিল্লা জেলা পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়। কুমিল্লা অতিরিক্ত পুলিশ (সদর সার্কেল) মহম্মদ সোহান সরকারের নেতৃত্বে একটি দল কুমিল্লা থেকে কক্সবাজারে যায় এবং ইকবাল হোসেনকে কুমিল্লায় নিয়ে আসে।

আরও পড়ুন : পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা কে এই ইকবাল?

এর আগে বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত এলাকার সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক করার পর রাতে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। গত ১৩ অক্টোবর ভোরে কুমিল্লার নানুয়াদিঘির পাড়ের পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরান শরিফ উদ্ধার হয়। এরপরই বাংলদেশের বেশ কিছু জায়গায় সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনা ঘটে। এই ঘটনার জেরে একই দিনে দিন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে হিন্দুদের মন্দিরে হামলা চালানো হয়। এতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে পাঁচ জন নিহত হন।

পরদিন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে হিন্দুদের মন্দির, মণ্ডপ ও দোকানপাটে হামলা-ভাঙচুর চালানো হয়। সেখানে হামলায় দু’জন নিহত হন। এরপর রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু জেলে বসতিতে হামলা করে ভাঙচুর, লুটপাট ও ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়। এ ঘটনায় ইতিমধ্যে মামলা দায়ের হয়েছে। শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশ সিসি টিভি ফুটেজ দেখে পুজো মণ্ডপে পবিত্র কোরান শরিফ রাখা ইকবালকে চিহ্নিত করে। অবশেষে সেই ইকবাল ধরা পড়ে কক্সবাজারে।

সুত্র : প্রথম কলকাতা

আরও পড়ুন ::

Back to top button