মুর্শিদাবাদ

মণিপুরে জঙ্গি হানায় মৃত বাংলার যুবক, মুর্শিদাবাদে শোকের ছায়া

মণিপুরের থিংঘাত গ্রামের রাস্তায় গতকাল পিএলএ জঙ্গিহানায় ৪৬ নম্বর অসম রাইফেলসের কমান্ডিং অফিসার সহ যে সাতজন শহীদ হয়েছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম কর্নেল বিপ্লব ত্রিপাঠীর গাড়ির ড্রাইভার শ্যামল দাস (৩৮)। মুর্শিদাবাদ জেলার কান্দি মহকুমার খড়গ্রাম থানার কৃত্তিপুর গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন শ্যামল দাস।

গতকাল মণিপুরের সিংঘাট পোস্ট ঘুরে কর্নেল যখন তাঁর স্ত্রী অনুজা এবং একমাত্র ছেলে আবিরকে নিয়ে গাড়ি করে ফিরছিলেন সেই সময় জঙ্গল থেকে অতর্কিতে আইইডি ব্লাস্ট করে ঝাঁকে ঝাঁকে গুলি চালাতে শুরু করে পিএলএ-র সশস্ত্র জঙ্গিরা। ৪৬ ব্যাটেলিয়নের জওয়ানরা পাল্টা জবাব দেওয়ার আগেই মৃত্যু হয় কর্নেল সহ সাতজনের। এই ঘটনার সময় কর্নেল বিপ্লব ত্রিপাঠীর গাড়ি চালাচ্ছিলেন মুর্শিদাবাদের ছেলে শ্যামল।

শ্যামল দাসের মৃত্যুর খবরে খড়গ্রামের কৃত্তিপুর গ্রামে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। শ্যামল দাসের মৃত্যুর খবর পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছে গোটা পরিবার। কাল থেকে বাড়িতে রান্না হয়নি। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে বাড়িতে শ্যামল দাসের স্ত্রী, বাবা-মা ছাড়াও একটি আট বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। শ্যামল দাসের নিথর দেহ ফেরার অপেক্ষাতে রয়েছে তাঁর পরিবার সহ সমস্ত খড়গ্রামবাসী।

আরও পড়ুন : জমি বিবাদে ভাইয়ের হাতে খুন? মালদহে জাতীয় সড়কের পাশ থেকে যুবকের দেহ উদ্ধারে চাঞ্চল্য

শ্যামলের স্ত্রী সুপর্ণা দাস জানান, ‘নিরাপত্তার কারণে আমার স্বামী আমাকে ফোন করতে বারণ করতো। ও যখন সময় পেত তখন আমার সাথে এবং মেয়ের সঙ্গে কথা বলে নিতো। তবে গত কয়েকদিনে খুব বেশি কথা হয়নি আমাদের।’

তিনি বলেন, ‘গতকাল শ্যামলের অফিস থেকে ফোন করে আমাদেরকে ওর মৃত্যু সংবাদ জানানো হয়েছে। কিন্তু কীভাবে হামলা হয়েছে, কারা এই হামলা করেছে সে বিষয়ে আমাদের কিছুই জানানো হয়নি।’

খড়গ্রামের তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক আশিস মার্জিত বলেন, ‘রাজ্য সরকারের নির্দেশে আজ আমি শহীদ শ্যামল দাসের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেছি এবং সরকারের তরফে ওই পরিবারের পাশে থাকার সবরকম আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।’ তিনি জানান, ‘আগামীকাল সকালবেলাতে শহীদ শ্যামলের দেহ নিজের গ্রামের বাড়িতে এসে পৌঁছবে। রাজ্য সরকারের তরফে এর জন্য সব রকম ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’

সুত্র : আজকাল

আরও পড়ুন ::

Back to top button