কলকাতা

পুরভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী চাই, দাবি সুপ্রিম কোর্টের কাছে!

ক’দিন পর কলকাতা পুরভোট। আর তাই নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে গেল বিজেপি। গেরুয়া শিবিরের অভিযোগ, ‘ভোটের আগে রাজনৈতিক হিংসা বাড়ছে। বিরোধীদের ওপর হামলা হচ্ছে। বিজেপি প্রার্থীদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এই অবস্থায় অবাধ পুরভোট করতে কেন্দ্রীয় বাহিনী প্রয়োজন।’

আদালতে এই কথা জানিয়ে বঙ্গ বিজেপি-র আবেদন, কলকাতা পৌর নির্বাচনে পর্যাপ্ত সংখ্যক কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের নির্দেশ দেওয়া হোক।

এই পুরো প্রক্রিয়া নিয়ে বিজেপি-র পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার শীর্ষ আদালতে একটি মামলা করেছেন। মঙ্গলবার শীর্ষ আদালত এই মামলা শুনতে রাজি হওয়ার কথা জানিয়েছে।

এদিন সুকান্ত মজুমদারের আইনজীবী মেনকা গুরুস্বামী জানান, বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বধীন বেঞ্চে এই ধরনের মামলা শুনানি হচ্ছে। মামলার গুরুত্ব বুঝে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। প্রধানবিচারপতি জানান, এই মামলাটি শুনবে আদালত।

আরও পড়ুন: রাজ্যসভা বয়কটের পথে বিরোধীরা

বঙ্গ বিজেপির তরফে শীর্ষ আদালতে জানানো হয়েছে, কলকাতা পৌর নির্বাচনে বিজেপির প্রার্থীদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। প্রার্থী তুলে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

বলা হয়েছে, পারমিতা দত্ত, পুর্নিমা চক্রবর্তী, চন্দন দাসরা স্থানীয় পুলিশ স্টেশনের অভিযোগ দায়ের করতে গেলে প্রশাসন তাঁদের অভিযোগ নিতে অস্বীকার করছে। এমত অবস্থায় কলকাতার পুরভোট অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করার জন্য কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা প্রয়োজন।

উল্লেখ্য এর আগে বিজেপি শাসিত ত্রিপুরায় পুরভোট ঘিরে অশান্তি হয়। নির্বাচন ঘিরে হিংসার ঘটনা ঘটে। বিরোধীদের ওপর হামলার অভিযোগ ওঠে। তৃণমূল, সিপিএম সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল। শীর্ষ আদালতের বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের বেঞ্চ অবাধ ও শান্তিপূ্র্ণ নির্বাচনের জন্য অতিরিক্ত ২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের নির্দেশ দিয়েছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে।

এ বার ত্রিপুরার বিরোধীদের সুরেই অবাধ পুরভোট করাতে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবিতে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হলেন বঙ্গ বিজেপি নেতারা। রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় তার আগেই কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করে কলকাতা পুরভোট করানোর পক্ষে সওয়াল করেছিলেন।

রাজ্য নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাসের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, পুরভোটে কেন কেন্দ্রীয় বাহিনী ব্যবহার করা হচ্ছে না, কোথায় অসুবিধা। সূত্রের খবর, কমিশনের তরফে রাজ্যপালকে জানানো হয়েছে, পুরভোটে আপাতত প্রয়োজন নেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর, রাজ্য পুলিশই যথেষ্ট।

 

সুত্র: নিউজ ১৮ বাংলা

আরও পড়ুন ::

Back to top button