স্বাস্থ্য

চোখের সুস্থতায় মেনে চলুন এই ৫ টি নিয়ম

আমাদের কিছু বাজে অভ্যাসের মধ্যে অন্যতম বাজে অভ্যাসটি হচ্ছে চোখ সম্পর্কে উদাসীনতা। চোখের সুস্থতায় আমরা একেবারে প্রয়োজন না হলে কিছু করতে চাই না। খুব জরুরী দরকার হলে চোখের ডাক্তারের কাছে যাই। অনেকেই চোখের যে কোনো সমস্যাকে পাওয়ারের সমস্যা বলে ভুল করেন এবং ভাবেন চশমাই একমাত্র সমাধান যা অনেক বড় একটি ভুল।

চোখ আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর মধ্যে একটি। একবার ভেবে দেখেছেন কি যারা অন্ধ তাদের পৃথিবীটা কেমন? তাদের কষ্ট উপলব্ধি করার ক্ষমতা আমাদের কখনো হবে না। কিন্তু আপনি যদি চোখের ব্যাপারে অবহেলা করেন এবং উদাসীন থাকেন তাহলে তা আপনাকে নিয়ে যেতে পারে অন্ধত্বের দিকে। তাই চোখের সুস্থতায় মেনে চলুন কিছু জরুরী নিয়ম। দেহের পাশাপাশি চোখদুটোকেও রাখুন সুস্থ।

চোখের ব্যায়াম করুন
দিনে কিছুটা সময় কাজের ফাঁকে বের করে নিয়ে ব্যায়াম করুন চোখের জন্য। চোখের পলক ঘন ঘন ফেলুন। কাজের ফাঁকে ২ মিনিট চোখ বন্ধ করে থাকুন। চোখ ঘুরিয়ে উপর নিচ ডানে বামে তাকান। দুই হাতের তালু ঘষে তালু গরম করে নিয়ে চোখ ঢাকুন হাতের তালুতে। চোখকে কাজের ফাঁকে বিশ্রাম দিন।

চোখের জন্য আলো বাতাসের প্রয়োজনীয়তা
চোখের জন্য সঠিক পরিমাণে আলো বাতাসের প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। যদিও আমাদের পরিবেশের দূষণের কারণে দূষিত বাতাসের কারণে আমরা অনেক সমস্যায় পড়ে থাকি। কিন্তু তারপরেও সকালের শুভ্র আলো এবং ঠাণ্ডা বাতাস চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ভালো। তাই সকালে উঠে ঠাণ্ডা বাতাস এবং আলোতে থাকার চেষ্টা করুন।

সঠিক খাবার খান
চোখের জন্য ভালো খাবার অবশ্যই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখবেন। স্বাদের কথা একেবারেই ভুলে যান। চোখের সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে এমন খাবার থেকে দূরে থাকবেন না। ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার, মাছ, শাকসবজি এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খান নিয়মিত। ভাজাপোড়া এবং তৈলাক্ত খাবার কম খাবেন।

নিয়মিত চেকআপ করান
সমস্যায় পড়ে ডাক্তারের কাছে না গিয়ে বছরে ২ বার সাধারণ চেকআপের জন্য ডাক্তারের কাছে যান। এতে করে যদি চোখে কোনো সমস্যা থেকে থাকে তাহলে তা প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়বে এবং আপনি বড় কোনো অসুস্থতা থেকে মুক্তি পাবেন।

কম্পিউটার, টেলিভিশন এবং মোবাইলের ব্যবহার কম করুন
প্রযুক্তি আমাদেরকে অনেক কিছুই দিয়েছে কিন্তু এই প্রযুক্তির কারণে আমরা অনেক কিছু হারাচ্ছিও। আমরা সকলেই জানি অতিরিক্ত কম্পিউটার, টেলিভিশন এবং মোবাইল ফোনের ব্যবহার আমাদের চোখের জন্য অনেক ক্ষতিকর। কিন্তু কেউ বাধ্য হয়ে এবং কেউ ইচ্ছে করেই এই জিনিসটি মানি না। ক্ষতিকর রেডিয়েশনের হাত থেকে চোখ বাঁচাতে যতোটা সম্ভব কম ব্যবহার করুন এইসকল জিনিস। আর আপনি যদি বাধ্য হয়ে থাকেন তবে একটানা কাজ করবেন না বা টিভি দেখবেন না।

আরও পড়ুন ::

Back to top button