প্রযুক্তি

মহাজাগতিক ব্লাড মুন দেখার সাক্ষী হতে চলেছে বিশ্ব!

Blood Moon : মহাজাগতিক ব্লাড মুন দেখার সাক্ষী হতে চলেছে বিশ্ব! - West Bengal News 24

১৫ ও ১৬ মে মহাজাগতিক বিরল দৃশ্য দেখার সুযোগ পাবে এ বিশ্ব। বিজ্ঞানীরা বলছে, ২০২২ সালের প্রথম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণের পাশাপাশি ব্লাড মুন দেখার সৌভাগ্য হবে বিশ্ববাসীর। বিশ্বের সব দেশে থেকে রক্তিম চাঁদ বা ব্লাড মুনের দৃশ্য না দেখা গেলেও বেশ কয়েকটি দেশেই সুযোগ মিলবে এই দৃশ্য দেখার।

বিজ্ঞানের ব্যাখ্যায় জানা যায়, হঠাৎ চাঁদের লাল বর্ণ ধারণ করার কারণ। একই সরলরেখায় সূর্য ও চাঁদের ঠিক মধ্যবর্তী স্থান দিয়ে পৃথিবী যখন অতিক্রম করে তখন চন্দ্রগ্রহণ হয়ে থাকে। চন্দ্রগ্রহণের ওই সময় পৃথিবীর ছায়া পড়ে চাঁদের ওপর।

ফলে চাঁদের ওপর থেকে ঢাকা পড়ে যায় সরাসরি সূর্যের আলো। সেই সময় প্রতিসরণের ফলে সূর্যের আলো চাঁদের অন্ধকার অংশে পড়তেই চাঁদকে এমন রক্তিম বর্ণের দেখায়। তাই বিজ্ঞানীরা চাঁদের এই বিশেষ অবস্থার নাম দিয়েছে ব্লাড মুন।

বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছে, ব্লাড মুন সাধারণ সময়ের চাঁদের থেকে সাত শতাংশ আর উজ্জ্বলতায় পনেরো শতাংশ বেশি হতে পারে। এবারের ব্লাড মুন দক্ষিণ গোলার্ধের বেশির ভাগ জায়গা থেকেই দেখার সুযোগ মিলবে। তাই ব্লাড মুন দেখতে পাওয়ার স্থানের তালিকায় রয়েছে দক্ষিণ আমেরিকা, ইউরোপ এবং পশ্চিম এশিয়ার দেশগুলো।

পূর্ণগ্রাস এই চন্দ্রগ্রহণটি দেখা যাবে রোম, ব্রাসেলস, লন্ডন, প্যারিস, হাভানা, জোহানেসবার্গ, লাগোস, মাদ্রিদ, সান্টিয়াগো, ওয়াশিংটন ডিসি, নিউইয়র্ক, রিও ডি জেনেইরো, শিকাগো শহরে।

আংশিক গ্রহণ দেখা যাবে আঙ্কারা, কায়রো, হনুলুলু, বুদাপেস্ট এবং আথেন্সে। ১ ঘন্টা ২৫ মিনিটের এই গ্রহণটি ভারত ও বাংলাদেশের কোনও প্রান্ত থেকেই দেখার উপায় নেই। তবে নাসা বলছে, বাংলাদেশ সময় অনুযায়ী এই গ্রহণ শুরু হবে ১৬ মে সোমবার সকাল ৮ টা ১০ মিনিটে।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button