রাজ্য

বঙ্গ উৎসবের নবতম সংযোজন: গণেশ চতুর্থী

স্বপ্নীল মজুমদার

তিনি বিঘ্নহর্তা। সর্ব সিদ্ধিদাতা।

সাধারণত গণেশ চতুর্থীতে মহারাষ্ট্রে তাঁকে ঘিরেই উৎসবের মেজাজে মেতে উঠেন মারাঠিরা। কিন্তু এখন এই পশ্চিমবাংলার আনাচে-কানাচেতেও সর্বজনীন মণ্ডপে রীতিমত জাঁকজমকের সঙ্গে গণেশ চতুর্থীর পুজো হচ্ছে। অনেকে বলছেন সমাজ মাধ্যমের দৌলতে পৃথিবীটা আরও ছোট হয়ে গিয়েছে। কয়েক শতাব্দী ধরেই বাঙালির অন্যতম উৎসব হয়েছে বড়দিন। তেমনই দীপাবলির সময়ে অবাঙালিদের ধনতেরাস উৎসবকেও আপন করে নিয়েছে বাঙালি। বাকি ছিল গণেশ পুজা সেটাও এখন বঙ্গসংস্কৃতির অন্যতম অঙ্গ।

বাংলায় পয়লা বৈশাখ অথবা অক্ষয় তৃতীয়ায় হালখাতার দিনে ব্যবসা কেন্দ্রে লক্ষ্মীর পাশে পুজো পান তিনি। আর সম্বৎসর শারদীয় দুর্গা পুজো ও বাসন্তী পুজোয় দেবী দুর্গার সন্তানদের অন্যতম গণেশেরও পুজো হয়।

বাঙালি বরাবরই পূজার্চনাকে উৎসবের মেজাজেই দেখে এসেছে। পরাধীন ভারতে বাঙালি বাবুরা সাহেবদের কাছে নিজেদের প্রতিপত্তি জাহির করার জন্য চমকের দুর্গাপূজোর আয়োজন করতেন। পরবর্তীকালে সেই দুর্গাপুজোই হয়ে উঠেছে বাঙালির জাতীয় উৎসব। ভারতবর্ষের বিভিন্ন রাজ্যেও এখন সাড়ম্বরে দুর্গাপুজো হয়। সম্প্রতি ইউনেস্কো কলকাতার দুর্গাপুজোকে হেরিটেজ তকমা দিয়েছে। মহারাষ্ট্রের গণেশ পুজোও পিছিয়ে নেই। মারাঠিবীর শিবাজীর শুরু করা গণেশ পুজোর এখন মহারাষ্ট্রের জাতীয় উৎসব। বাঙালি বরাবরই অন্যের সংস্কৃতিকে আপন করে নিয়েছে। আর এবার গণেশ পুজোর জাঁকজমক মনে করিয়ে দিচ্ছে ফেলে আসা বিভীষিকাময় দুটি করোনা আক্রান্ত বছরের কথা।

করোনাহীন বঙ্গে এবার যেন গণেশ চতুর্থীকে দিয়েই সারা বাংলায় জুড়ে উৎসবের মেজাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। লোকসংস্কৃতি গবেষক পঙ্কজ কুমার মণ্ডল বলছেন, “কলকাতায় কয়েক দশক আগে থেকেই অবাঙালি পল্লীতে জাঁকজমকের গণেশ পুজো হয়ে আসছে। কসমোপলিটন রেলশহর খড়্গপুরেও সত্তরের দশক থেকেই মারাঠি ও দক্ষিণ ভারতীয়রা গণেশ চতুর্থীর দিন গণেশ পুজো করে আসছেন। গত কয়েক বছরে খড়্গপুর ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় গণেশ পুজোর জাঁক বেড়েছে। আর এখন উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিণবঙ্গের জেলা শহর ও গ্রামে গঞ্জে সর্বজনীন গণেশ পুজোর আয়োজন হচ্ছে।” বেশির ভাগ মণ্ডপে গণেশের রূপটানে মারাঠি আদল। দুর্গার পাশে আমরা যে গণেশকে দেখে অভ্যস্ত, গণেশ চতুর্থীর মণ্ডপে সেই গণেশের সংখ্যা কমে যাচ্ছে।

কেউ কেউ উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রশ্ন তুলছেন, সোশ্যাল মিডিয়া, বাংলা সিরিয়াল হয়ে পাড়ার মোড়ে মোড়ে গণেশ চতুর্থী পালন সংস্কৃতির মিশ্রণ নাকি আপন সংস্কৃতি থেকে সরে যাওয়ার রাস্তা তৈরি হচ্ছে? সমালোচনা, বিতর্ক থাকবেই। তবে নিঃসন্দেহে বলা চলে বাঙালির উৎসবের ক্যালেন্ডার নবতম সংযোজন: গণেশ চতুর্থী!

আরও পড়ুন ::

Back to top button