জানা-অজানা

জানেন কি, যে নারীর কারণে ট্রয় নগরী ধ্বংস হয়েছিল?

জানেন কি, যে নারীর কারণে ট্রয় নগরী ধ্বংস হয়েছিল?

ইতিহাস থেকে আমরা জেনে এসছি সৃষ্টির শুরু থেকেই বেশিরভাগ হত্যার পিছেনে মূল কেন্দবিন্দু হচ্ছে নারী। আমরা দেখি একটি মেয়েকে পাওয়ার কারণে ছেলেরা হত্যার মত জঘন্য কাজ করতে সংকোচ করেনা। আমরা যদি ইতিহাসের পাতা উল্টাই তাহলে আমরা দেখতে পাব অনেক হত্যাকান্ডের মূলকেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে কোন নারী।

শুধু তাই নয় নারীর কারণে অনেক বন্ধুত্বের বন্ধন ভেঙ্গে চারখার হয়ে যায়। কারণ যখন কোন ছেলে জানতে পারে তার প্রিয় মানুষটাকে তার কাছের বন্ধু ভালবাসে। তখন তার সেই বন্ধুই হয়ে যায় তার সবচেয়ে বড় শত্রু।

কারণ এই পৃথিবীতে ভালবাসার ভাগ দিতে কেউ চাইনা। আজকে “দেশে বিদেশে” পাঠকদের কাছে এমন এক নারীর কথা তুলে ধরবো যার প্রেমের জের ধরে ট্রয় নগরী ধ্বংস হয়েছিল। তার নাম হেলেন। যার প্রেমের জন্য টানা ১২ বছর ধরে যুদ্ধ চলেছিল।

গ্রীক পুরাণের ফ্যাক্ট এবং ফিকশনের অপূর্ব এক সংমিশ্রণ হল, গ্রীকলেখক কালজয়ী হোমারের জগতবিখ্যাত এপিক “ইলিয়াড।” নাম করা সেই যুদ্ধের নাম হল, “Trojan War!” যে যুদ্ধে ধ্বংস হয়েছিল পুরো একটা শহর- ট্রয়! ইতিহাসে যা “War For Helen” কিংবা “Helen Of Troy” নামে বিখ্যাত। গ্রীক পুরাণ অনুযায়ী অনন্য এই সুন্দরী হেলেন ছিলেন, ট্রয় নগরীর পার্শ্ববর্তী, স্পার্টার রাজা মেনেলাসের স্ত্রী। ট্রয়ের ছোট রাজকুমার প্যারিস তাঁকে চুরি করে তাঁর রাজ্যে নিয়ে এসেছিলেন।

এতেই বেঁধে গেল ১২ বছর ধরে চলা এক ঐতিহাসিক যুদ্ধ। স্পার্টার পক্ষে এই যুদ্ধে নেতৃত্ব দেন রাজা এগামেমনন। এমনকি এই যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন গ্রীক দেব ও দেবীরা! ট্রয় রাজকুমার হেক্টর, প্যারিস, দেবতা অ্যাকিলিস, স্পার্টার রাজা মেনেলাস সহ অনেকেই নিহত হন।

প্রেমের জন্য এত রক্তপাত আর ধ্বংস পৃথিবীর ইতিহাসে আর নেই। প্রেমের জন্য এইরকম রক্তপাতের আর ধ্বংসলীলার কথা শুনে গোটা বিশ্ব হয়েছে অবাক। এই থেকে বুঝা যাচ্ছে নারীর ভালবাসা পাওয়ার জন্য পুরুষরা কিনা করতে পারে। এমনকি পুরুষরা নারীর ভালবাসা পাওয়ার জন্য গোটা বিশ্বকে ধ্বংস দিতে পারে।

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button