জীবন যাত্রা

মিথ্যা ধরার ১০ উপায়

আপনার সামনে দাঁড়িয়ে কেউ মিথ্যা কথা বলছে কি না কি করে বুঝবেন? যদিও এর কোনও সঠিক পদ্ধতি বের করতে পারেননি বৈজ্ঞানিকরা। তবু মনস্তত্ববিদরা বলেন, কিছু বডি ল্যাঙ্গুয়েজ দেখে আপনি আন্দাজ করতে পারবেন, আপনার প্রিয় বন্ধু বা গার্লফ্রেন্ড আপনাকে ঠকাচ্ছেন কি না।

সরাসরি না তাকানো:
একজন মিথ্যাবাদী কখনও আই কন্ট্যাক্টে কথা বলতে পারেন না। আপনার সঙ্গে কথা বলার সময়েও তার চোখ আপনার চোখের দিকে থাকবে না।

সরাসরি তাকানো:
শুনতে অবাক লাগলেও একজন মিথ্যাবাদী এ পন্থাই বেছে নেন। আপনাকে ঠকাতে হলে শান্তভাবে একদৃষ্টিতে আপনার চোখে চোখ রেখেই কথা বলবেন মিথ্যাবাদীরা। ভয়ানক জালিয়াত না হলে এ অভ্যাস রপ্ত করা কঠিন।

অন্যমনস্কতা:
কেউ কথা বলার সময় বারবার চুল নিয়ে খেললে, নখ ছিঁড়লে, পায়ের পজিশন বারবার পাল্টালে বুঝবেন তিনি আপনাকে সত্য বলছেন না। এগুলো নার্ভাসনেসের লক্ষণ।

সফলতা চাইলে ৫টি নেতিবাচক চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন এখনই!

স্ট্যাচু:
মিথ্যা বলার সময় অনেকেই একদম কাঠ হয়ে যান। শরীরের ওপরের অংশের নড়াচড়া বন্ধ হয়ে যায়। কনফিডেন্ট না থাকার লক্ষণ এটি।

গলা পরিষ্কার:
কথা বলার সময় অল্প কেশে গলা পরিষ্কার করা, অপ্রয়োজনে গলা খাঁকারি দেয়া মিথ্যুকদের অভ্যাস।

ঘেমে একসা:
মিথ্যা বলার সময় অনেকেই ঘামতে থাকেন। ধরা পরে যাওয়ার ভয় থেকেই এটা হয়।

আটকে আটকে কথা বলা:
মিথ্যা বলতে গিয়ে অনেকেই তথ্যে ভুল করে বসেন। তখন নিজের ভুল ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়ে থেমে, আটকে আটকে কথা বলেন মিথ্যুকরা।

অকারণে টেনে কথা বলা:
কোনও একটি বাক্য শেষ করতে গিয়েও শেষ করতে পারছেন না আপনার উল্টোদিকে কথা বলতে থাকা ব্যক্তিটি। তাহলে বুঝবেন তিনি মিথ্যা বলছেন।

প্রথম ডেটিং-য়ে ছেলেদের যে বিষয়গুলো লক্ষ্য করে মেয়েরা

বাক্যের বিন্যাসে অসঙ্গতি:
যারা মিথ্যা কথা বলেন তাদের বাক্য বিন্যাস দেখলেই আপনি বুঝতে পারবেন, তিনি মিথ্যা বলছেন। অকারণে সাধু বাক্যের প্রয়োগ, চলতি শব্দ এড়িয়ে যাওয়া, সাধারণ শব্দের বদলে লেখ্য ভাষায় কথা বললে বুঝবেন আপনার সঙ্গী আপনাকে ঠকাচ্ছেন।

চোখের জল:
এ ব্যাপারে ১০ গোল দেবে মেয়েরা। মিথ্যা বলার সময় চোখের জল ফেলতে ওস্তাদ মেয়েরা। ছেলেরা ততটা পটু নয় এ বিষয়ে। যারা শো অফ করতে ভালোবাসেন তাদের কাছে এভাবে মিথ্যা বলাটা ডালভাত। তাই সাধু সাবধান।

আরও পড়ুন ::

Back to top button