জাতীয়রাজনীতি

জল্পনায় সিলমোহর! রাহুল গান্ধীর হাত ধরলেন কানহাইয়া কুমার, মোদীর সামনে নয়া চ্যালেঞ্জ!

যাবতীয় জল্পনাকে সত্যি করে কংগ্রেসেই যোগ দিলেন কানহাইয়া কুমার। সিপিআই ছেড়ে রাহুল গান্ধীর হাত ধরলেন তিনি। ভগৎ সিংয়ের জন্মদিনেই কংগ্রেসে যোগ দিলেন কানহাইয়া। মাথায় হলুদ পাগড়ি পড়ে রাহুল গান্ধীর হাত ধরেন প্রাক্তন সিপিআই নেতা। এদিন গুজরাতের বিধায়ক জিগনেশ মেভানিও দিল্লিতে কানহাইয়া কুমারের সঙ্গেই কংগ্রসে যোগ দেন।

এদিকে এদিন সকাল থেকেই দিল্লিতে কংগ্রেস অফিসের বাইরে কানহাইয়া কুমারকে স্বাগত জানাতে পোস্টারে ছয়লাপ করে ফেলা হয়। কংগ্রেসের নেতা কর্মীদের মধ্যেও যথেষ্ট উৎসাহ ছিল। এরপর দিল্লির শহিদ-ই-আজম ভগৎ সিং পার্কে রাহুল গান্ধীর সঙ্গেই মুষ্ঠিবদ্ধ হাত উপরে তুলে ধরেন কানহাইয়া কুমার।

বিগত দিনে জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সভাপতি ছিলেন কানহাইয়া। সেই সময় তিনি নজর কাড়েন জাতীয় রাজনীতির আঙিনায়। তাঁর বাগ্মীতায় মুগ্ধ হন অনেকেই। মোদী বিরোধিতার সুর সপ্তমে তুলে তিনি বাম রাজনীতিতে নতুন করে জোয়ার আনার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু সেই জোয়ারে পুরোপুরি পাল তোলার আগেই তিনি চলে গেলেন কংগ্রেসে।

আরও পড়ুন : পঞ্জাবে ফের নাটকীয় ঘটনা, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি পদ থেকে ইস্তফা সিধুর

কয়েকদিন আগেই তিনি রাহুল গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন। তারপর থেকেই নানা জল্পনা ছড়িয়েছিল। এদিকে গুজরাতের এমএলএ জিগনেশ মেভানি আগেই ঘোষণা করেছিলেন তিনি ও কানহাইয়া কুমার কংগ্রেসে যোগ দেবেন। একেবারে নির্দিষ্ট দিনেই তাঁরা যোগ দিলেন হাত শিবিরে। তবে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, কানহাইয়ার কংগ্রেসে যোগদানের জেরে বিহারে হাত আরও শক্ত হবে।

জেএনইউর প্রাক্তনী তথা কংগ্রেস বিধায়ক শাকিল আহমেদ খান বলেন, কানহাইয়া একটা মিশন নিয়ে এসেছেন। হয় কংগ্রেস নেতাদের জনতার সঙ্গে যোগাযোগ বাড়াতে হবে, নয়তো আরও কোণঠাসা হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। এক কংগ্রেস নেতার দাবি, একেবারে গরিব খেটে খাওয়া পরিবার থেকে উঠে এসেছেন কানহাইয়া। কংগ্রেস এতে বাড়তি সুবিধা পাবে।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

আরও পড়ুন ::

Back to top button