রাজনীতিরাজ্য

‘ভুয়ো ভোটে নির্ভর করেই জিততে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়’ একজন মুখ্যমন্ত্রীর কি সাজে?’

বাংলার বিধানসভা নির্বাচন মিটলেও ভবানীপুরের উপ নির্বাচন (Bhabanipur By-Election) ঘিরে টানটান উত্তেজনা। আজ সকাল থেকেই বুথে বুথে ঘুরছেন ভবানীপুরের বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল (Priyanka Tibrewal)। আর সকালে এক ভুয়ো ভোটারকে হাতে নাতে ধরেছেন বলে অভিযোগ করেন প্রিয়াঙ্কা। তাঁর অভিযোগ, কোনও পরিচয় পত্র ছাড়াই বুথে প্রবেশ করেছেন তিনি।

শুধু তাই নয়, জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানতে পারেন ওই যুবক আসলে বাঁশদ্রোণীর ভোটার। আর এই সেই ইস্যুতেই এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) তথা তৃণমূলের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানালেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari) ও বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা অমিত মালব্য (Amit Malviya)।

প্রিয়াঙ্কার ওই অভিযোগ সামনে আসার পরই ঘটনার ভিডিয়ো টুইটারে পোস্ট করেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি প্রশ্ন তোলেন, বাঁশদ্রোণীর ভোটার কী ভাবে ভোট দিতে এল ভবানীপুরে? পাশাপাশি তাঁর দাবি, ভুয়ো ভোটের ওপর নির্ভর করেই তৃণমূল জয়ের ব্যাপারে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী। তিনি লিখেছেন, ‘বি তে ভবানীপুর, বি তে বাঁশদ্রোণী’।

একই অভিযোগ সামনে এনে আক্রমণ শানিয়েছেন বিজেপি আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য। টুইটে তিনি দাবি করেছেন, নন্দীগ্রামের হারের পর ভুয়ো ভোটে নির্ভর করেই জিততে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর প্রশ্ন, ‘একজন মুখ্যমন্ত্রীর কি ভু্য়ো ভোটের রায় মানায়?’ তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘ভুয়ো ভোটের অতিমারি থাবা বসিয়েছে ভবানীপুরে।

বিজেপির অভিযোগ, এ দিন সকালে তাঁদের প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল খালসা হাইস্কুলে ভোট কেন্দ্রের ভিতরে গিয়ে দেখেন, এক যুবক সেখানে রয়েছেন। তাঁর হাতে কোনও রকম পরিচয়পত্র নেই, অন্যান্য কোনও পরিচয়পত্র নেই। অথচ তিনি ভোট দিতে ঢুকেছেন। তখন তাঁরা তাঁকে হাতেনাতে ধরে ফেলা হয়।

আরও পড়ুন : সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ভবানীপুরে বেড়েছে ভোটের হার, বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত ভোট পড়ল ৫৩ শতাংশের বেশি

ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, প্রিয়াঙ্কার প্রশ্নের উত্তরে ওই যুবক জানাচ্ছেন যে তিনি বাঁশদ্রোণীর বাসিন্দা। প্রিয়াঙ্কা তাঁকে বলেন, পরিচয় পত্র না আসা পর্যন্ত বুথের বাইরেই বসে থাকতে হবে তাঁকে। অভিযোগ, এরপরই বিজেপির লোকজন ওই যুবককে মারতে মারতে বাইরে নিয়ে আসেন। ওই যুবক তৃণমূলেরই লোক বলে দাবি করেছে বিজেপি।

পাল্টা তৃণমূলের দাবি, বিজেপি অশান্তি পাকাতেই এই পরিস্থিতি তৈরি করেছে বিজেপি। যে ছেলেটিকে মারধর করা হয়েছে, বিজেপির লোকজন দীর্ঘক্ষণ ধরে তাঁকে আটকে রাখে। এর সঙ্গে ভুয়ো ভোটারের কোনও সম্পর্কই নেই। সকাল থেকে শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোটদান পর্ব চলছিল। বিজেপির প্রার্থী ঢুকতেই গোলমাল শুরু হয়। যদিও বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়ালের বক্তব্য, গোটা রাজ্যটাই ভুয়ো আইপিএস, পুলিশ আধিকারিকে ভর্তি হয়ে রয়েছে। এখানেও তা হচ্ছে।

সূত্র: টিভি ৯

আরও পড়ুন ::

Back to top button