বলিউড

আমার মাকে পতিতা বানিয়ে দিয়েছে : গাঙ্গুবাইয়ের ছেলে

Gangubai Kathiawadi : আমার মাকে পতিতা বানিয়ে দিয়েছে : গাঙ্গুবাইয়ের ছেলে - West Bengal News 24

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত অটোবায়োগ্রাফিক্যাল সিনেমা ‘গাঙ্গুবাই কাথিয়াওয়াড়ি’।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে গাঙ্গুবাইয়ের ছেলে বাবু রাও অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার মাকে পতিতা বানিয়ে দিয়েছে সিনেমায়। মানুষ এখন মাকে যা-তা কথা বলছে।’

ক্ষোভ প্রকাশ করে গাঙ্গুবাইয়ের নাতনি বলেন, ‘যেখানে আমার দাদি সারাজীবন যৌনকর্মীদের কল্যাণে কাজ করেছেন, সেখানে তারা আমার দাদিকে কীসে পরিণত করে দিয়েছেন! পরিবারের অমতে শুধু অর্থের লোভে তার পরিবারের বদনাম করা হচ্ছে।’

গাঙ্গুবাইয়ের পারিবারিক উকিল নরেন্দ্র জানান, ২০২০ সাল থেকে গাঙ্গুবাইয়ের পরিবারের সদস্যরা পালিয়ে বাঁচছেন। সিনেমায় গাঙ্গুবাইকে কেন সমাজকর্মী না দেখিয়ে পতিতা হিসেবে দেখানো হচ্ছে, এ বিষয়ে নানান প্রশ্ন উঠে আসছে।

আরও পড়ুন :: ১০ কোটি রুপি নিয়ে আসবেন, এক রাত আমি আপনার: ঐশ্বরিয়া

এর আগে গত বছর সিনেমার শুটিংয়ের ওপর স্থায়ী স্থগিতাদেশ চেয়ে বোম্বে দায়রা আদালতে আবেদন জানিয়েছিলেন গাঙ্গুবাইয়ের ছেলে বাবু রাওজি। সেই আবেদনের ভিত্তিতে পরিচালক সঞ্জয়লীলা বানসালি ও অভিনেত্রী আলিয়া ভাটকে সমন পাঠিয়েছিলেন আদালত। শুধু তাই নয়, ছবিটির নির্মাতাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মানহানির মামলায় অন্তর্বর্তীকালীন স্থগিতাদেশও দেওয়া হয়েছে। মামলাটি এখন বিচারাধীন।

গেল বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত সিনেমাটির টিজারে উঠে এসেছে, সাধারণ এক কিশোরীর নির্মম যৌনপল্লির হর্তাকর্তা হয়ে ওঠার জার্নি। মুম্বাইয়ের কুখ্যাত রেডলাইট এলাকা কামাথিপুরা। সেই এলাকার ‘ম্যাডামজি’ নামে পরিচিত ছিলেন গাঙ্গুবাই।

ষাটের দশকে গোটা কামাথিপুরার কর্ত্রী ছিলেন গাঙ্গুবাই কাথিয়াওয়াড়ি। খুব অল্প বয়সে জোর করে পতিতাবৃত্তিতে নামানো হয়েছিল তাকে। এরপর সেই গাঙ্গুবাই হয়ে উঠেছিলেন গোটা কামাথিপুরার হর্তাকর্তা। কিন্তু জোর করে যেসব মেয়েদের এই পেশায় ঠেলে দেওয়া হতো তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিলেন তিনি।

মাত্র ১৬ বছর বয়সে বাবার হিসাবরক্ষকের সঙ্গে গঙ্গা হরজীবনদাস কাথিওয়াড়িয়া গুজরাট থেকে মুম্বাইয়ে পালিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু প্রেমে ধোঁকা খেতে হয়েছিল এই কিশোরীকে। বিয়ে করেও স্বামী তাকে বিক্রি করে দেয়। ডন করিম লালার একাধিক গ্যাং মেম্বার তাকে বারবার ধর্ষণ করে। তবুও হাল ছাড়েন না গাঙ্গুবাই। শেষমেষ করিম লালার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। তাকে নিজের বোনের সম্মান দেয় করিম লালা। এরপরই কামাথিপুরায় একটি যৌনপল্লি শুরু করেন গাঙ্গুবাই।

গাঙ্গুবাইয়ের ছেলে বাবুজির দাবি, ‘গাঙ্গুবাই কাথিয়াওয়াড়ি’ সিনেমায় তার মা এবং তাদের পরিবার সম্পর্কে ভুল তথ্য পরিবেশিত হচ্ছে; যা তারা মেনে নিতে পারছেন না।

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button