মালদা

ভুয়ো পুলিশ সেজে স্টেশন থেকে বেরতেই মোবাইল-টাকা ছিনতাই যাত্রীর, গ্রেফতার যুব তৃণমূল নেতা

ভুয়ো পুলিশ সেজে স্টেশন থেকে বেরতেই মোবাইল-টাকা ছিনতাই যাত্রীর, গ্রেফতার যুব তৃণমূল নেতা - West Bengal News 24

তাঁর বেশ দাপট রয়েছে ইংরেজবাজারে। শাসকদলের তরুণ নেতা তিনি। পুলিশ সেজে সেই তরুণ তৃণমূল নেতাই নাকি শ্রমিকদের থেকে গভীর রাতে মোবাইল ছিনতাই করেছেন। এই অভিযোগে তাঁকে গ্রেফতার করল ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। যা নিয়ে তীব্র অস্বস্তিতে মালদহের তৃণমূল কংগ্রেস। সেই যে ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে ভুয়ো আইএএস দেবাঞ্জন দেবকে দিয়ে শুরু হয়েছিল, তারপর যেন থামছেই না। ভুয়ো সিবিআই, ভুয়ো আইপিএস—কত না গ্রেফতার হলেন।

সম্প্রতি বীরভূমে ভুয়ো আইপিএস পরিচয় দিয়ে এক মহিলাও গ্রেফতার হয়েছেন। এবার ভুয়ো পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেফতার হলেন তৃণমূল নেতা প্রিয়ার্ঘ্য সাহা। শুক্রবার গভীর রাতে বেঙ্গালুরু থেকে উত্তর দিনাজপুরের পাঁচ ঠিকা শ্রমিক মালদহ টাউন স্টেশনে নামেন। স্টেশনে নেমে শহরের রথবাড়ি মোড়ে বাস ধরতে আসছিলেন কালিয়াগঞ্জ যাওউয়ার উদ্দেশে।

আরো পড়ুন : ১০ কোটি টাকা প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়

অভিযোগ, ঠিক সেই সময় স্টেশনের বাইরে ওই যুবক নিজেকে ইংরেজবাজার থানার সাব ইনস্পেক্টর পরিচয় দিয়ে পাঁচ শ্রমিকের পথ আটকান। বলেন, তাঁর কাছে রিপোর্ট রয়েছে ওই শ্রমিকদের ব্যাগে হেরোইন রয়েছে। পরিযায়ী শ্রমিকদের বক্তব্য, তল্লাশির নামে ওই যুবক পাঁচ জনের থেকে পাঁচটি মোবাইল ও কয়েক হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দেয় তার এক সঙ্গীকে নিয়ে। পড়ে ওই ঠিকা শ্রমিকরা ইংরেজবাজার থানার পুলিশের দ্বারস্থ হলে অভিযুক্ত যুব তৃণমূল নেতা প্রিয়ার্ঘ সাহাকে গ্রেফতার করে পুলিশ ।

আর এই ঘটনাকে ঘিরেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে মালদহের রাজনৈতিক মহলে । উত্তর দিনাজপুরের ওই ঠিকা শ্রমিকদের মধ্যে একজন বকুল রায়। তিনি বলেন, ‘বেঙ্গালুরুতে ইলেকট্রিক পিলার বসানোর কাজে গিয়ে ছিলাম গত পাঁচ মাস আগে । সেখান থেকে কাজ শেষ করে শুক্রবার দুপুরে হাওড়া স্টেশনে পৌঁছই। তারপর ট্রেন ধরে মালদহে আসি। রথবাড়ি মোড়ে যাওয়ার পথে আমাদের একজন।

আরো পড়ুন : খুনিদের খুঁজে খুঁজে বের করা হবে, রেয়াত করা হবে না পুলিশকেও, হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

নিজেকে ইনস্পেক্টর পরিচয় দিয়ে আমাদের তল্লাশি শুরু করে। আমরা তাকে জিজ্ঞেস করতেই তিনি বলেন প্রচুর পরিমাণে মাদক পাচারের খবর আছে আমাদের কাছে । তাই এই তল্লাশি । কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমাদের পাঁচটি মোবাইল ও কয়েক হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দেয় ওই যুবক ও তার এক সঙ্গী । পরে থানার দ্বারস্থ হলে পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে।’ এই ঘটনা নিয়ে জেলা বিজেপির সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র মণ্ডল বলেন, এ রাজ্যে তৃণমূল নেতারা এতো নীচে নামবে তা ভাবা যায় না।

এই চিত্র এখন রাজ্যের সর্বত্র। যে তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তাকে জেলা থেকে রাজ্য বহু তাবড় তাবড় তৃণমূল নেতার সাথে এক ফ্রেমে দেখা গেছে। এই ধরণের অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’ তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠতেই কার্যত ঝেড়ে ফেলার চেষ্টা করছেন জেলা নেতৃত্ব ।

একাধিক নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি কেউই । গোটা ঘটনা নিয়ে জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া জানান একটি ছিনতাইয়ের ঘটনার অভিযোগ পেয়েছি । এই ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে । গোটা ঘটনা নিয়ে তদন্ত চলছে।

সূত্র : দ্য ওয়াল

আরও পড়ুন ::

Back to top button