রাজনীতিরাজ্য

‘ভোটদানে বাধা দিলে দল থেকে বহিস্কার’, হুঁশিয়ারি অভিষেকের

‘ভোটদানে জোর করলে দল থেকে বহিস্কার,’ পুরসভার প্রার্থীদের কড়া নির্দেশ অভিষেকের। হাতে আর মাত্র কিছুদিন বাকি, ১৯ শে ডিসেম্বর কলকাতা পুরসভার ভোট। সেই কথা মাথায় রেখেই শনিবার মহারাষ্ট্র নিবাসে ১৪৪ জন পুরপ্রার্থীদের নিয়ে বৈঠকে বসেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব।

যেখানে পুরভোটের প্রত্যেক প্রার্থীকে নিজেদের ওয়ার্ডে পরে থাকতে নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূল সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও যারা টিকিট পান নি তাদের দল অন্য কাজে লাগাবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন অভিষেক।

মূলত, ২০১৮ সালে রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচনে সন্ত্রাসের অভিযোগ জানায় বিরোধীরা। যা খুব একটা ভালো চোখে দেখেনি রাজ্যের বাসিন্দারা। আর তাই ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে খারাপ ফল হয় তৃণমূল কংগ্রেসের। তাই সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না হয় সেই বিষয়ে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনের পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে। বারবার সেই ঘটনাই মনে করায় রাজ্যের শাসকদলকে। তাই কলকাতা পুরভোটে কোনও অশান্তি নয়, শান্তিপূর্ণ ভাবেই ভোট হোক।

যাতে ভবিষ্যতে বিশেষ করে জাতীয় স্তরে কোনও ইস্যু না খুঁজে পায় বিরোধীরা। আর রাজ্যের বাকি পুরভোটে বাহিনী ইস্যুতে বাগড়া না দেয় বিরোধীরা। তাই দলের প্রত্যেক প্রার্থীদের শুধুমাত্র তৃণমূল কংগ্রেসের উন্নয়ন ও পরিষেবার প্রচার করতে নির্দেশ দিয়েছেন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, ‘ভোট শান্তিতে করতে হবে, কোনওরকম অভিযোগ যেন না আসে। নম্র থাকতে হবে।

গায়ের জোরে নয়, মানুষের পাশে থেকে ভোট করাতে হবে। একটিও অভিযোগ পেলে দল কিন্তু কড়া ব্যবস্থা নেবে। প্রয়োজনে বহিষ্কারের পথেও হাঁটতে পারে দল।

আরও পড়ুন: ‘আমি মমতার সৈনিক’, নির্দল থেকে ফের দলে রতন মালাকার

যাঁরা পুরভোটে টিকিট পাননি, তাঁরাও দলের সৈনিক। পুরভোটে তাঁদেরও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব রয়েছে। দলের বিক্ষুব্ধ, যাঁরা টিকিট না পেয়ে নির্দলের হয়ে দাঁড়িয়েছেন, তাঁদের একসঙ্গে লড়াই করতে হবে। নয়ত বহিষ্কারের খাঁড়া নামতে পারে।’

হাজরাতে শনিবারের পুরভোটের স্ট্র্যাটেজি বৈঠকে অভিষেক জানান, ‘মনে রাখতে হবে, সারাদেশ তাকিয়ে এই ভোটের দিকে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে পুরোপুরি মেনে ভোট করাতে হবে। আত্মতুষ্টি নয়। মনে রাখতে হবে, জনগণ ৫ বছরের জন্য আপনাদের দায়িত্ব দেবে।

জনতার আস্থা অর্জন করতে হবে। মানুষের সঙ্গে থাকতে হবে, তাঁদের জন্য কাজ করে যেতে হবে।’ এদিনের বৈঠকে ১৪৪ জন পুরভোটের প্রার্থীরা ছাড়াও হাজির ছিলেন পরিবহন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, তাপস রায়, তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জী, অরূপ বিশ্বাস ও রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি।

 

আরও পড়ুন ::

Back to top button