দার্জিলিং

বন্ধ হোটেলের বাথরুমে পড়ে নাবালিকার অর্ধনগ্ন শরীর অতঃপর !

বন্ধ হোটেলের বাথরুমে পড়ে নাবালিকার অর্ধনগ্ন শরীর অতঃপর ! - West Bengal News 24

দীর্ঘদিন ধরে হোটেল বন্ধ ছিল। টিনের ব্যারিকেড দেওয়া বাইরে। সেই হোটেলেরই বাথরুমে পড়েছিল এক বস্তা। বস্তার মুখ খুলতেই বেরিয়ে আসে অর্ধনগ্ন রক্তাক্ত নাবালিকার শরীর! এলাকারই বাসিন্দা ওই নাবালিকা নিখোঁজ ছিল বেশি কিছুদিন ধরে। থানায় হয় নিখোঁজ ডায়েরিও। সেই ঘটনারই তদন্তে নেমে পুলিশের হাতে উঠে এল চাঞ্চল্যকর ঘটনা।

দার্জিলিঙের নকশালবাড়িতে হোটেলের বাথরুম থেকে উদ্ধার নাবালিকার অর্ধনগ্ন দেহ। ঘটনাকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়িয়ে এলাকায়। নাবালিকাকে ধর্ষণ করে খুনের অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয়রা। অভিযুক্ত সন্দেহে এক ব্যক্তির বাড়িতে ভাঙচুরও চালানো হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই নাবালিকা বেশ কিছু দিন ধরেই নিখোঁজ ছিল। স্থানীয় বাসিন্দা ও পরিবারের সদস্যরাই প্রাথমিকভাবে খোঁজ শুরু করেন। পরে থানায় করা হয় নিখোঁজ ডায়েরি। পুলিশও তদন্ত শুরু করে। নকশালবাড়িতে একটি হোটেল দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ছিল। হোটেলের বাইরের এলাকায় টিনের প্রাচীর দেওয়া ছিল। বাইরে থেকে বোঝা যেত না, হোটেলের ভিতরে কী হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা খোঁজ করতে করতে ওই হোটেলের ভিতরে ঢুকে যান। তখন হোটেলের দোতলার কোণার একটি বাথরুমে একটা বস্তা পড়ে থাকতে দেখেন। দেখে সন্দেহ হয় তাঁদের। খবর দেন থানায়। পুলিশ গিয়ে ওই বস্তার মুখ খুলতেই চমকে ওঠেন বাসিন্দারা। অর্ধনগ্ন পচাগলা ওই নাবালিকার দেহ তাঁরা পড়ে থাকতে দেখেন। দেহে পচন ধরেছিল।

আরও পড়ুন: গঙ্গারামপুর পৌরসভা নির্বাচনের উন্নয়নই হাতিয়ার প্রশান্ত মিত্রের

এই ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দাদের সন্দেহ গিয়ে পড়ে জগদীশ ব্যাপারি নামে এক ব্যক্তির ওপর। ওই হোটেলের পাশেই চায়ের দোকান জগদীশের। জগদীশের বাড়ি ও চায়ের দোকানে ভাঙচুর চালায় উত্তেজিত জনতা। পরিস্থিতি সামলাতে নকশালবাড়ি থানার বাহিনী ঘটনাস্থলে যায়।

যান জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, গ্রামীণ ডিএসপি, সার্কেল ইন্সপেক্টর। উত্তেজিত এলাকাবাসীদের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন তাঁরা। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। মৃতদেহ উদ্ধার করে নকশালবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, দেহটি ময়নাতদন্তের জন্য উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। ঘটনায় দোষীদের শাস্তির দাবি তুলেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এক স্থানীয় বাসিন্দার কথায়, “হোটেলের ভিতরে বাথরুম থেকে উদ্ধার হয়েছে। নৃশংসভাবে বাচ্চা মেয়েটাকে খুন করা হয়েছে। বাঁ দিকে আঘাত ছিল। জগদীশ ব্যাপারির নাম উঠে এসেছে। হোটেলের বাকি কর্মীরা কী করেছে কে জানে, যারা নাইট গার্ড থাকে, তারা কী করেছে জানি না। আমরা মনে করি সংস্থার কর্তব্য, কর্মীদের ওপর নজর রাখা।”

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button