বিনোদন

মেয়ের বয়সী আমি কীভাবে তার প্রেমিকা হই?

মুম্বাই শহরে পা দেওয়ার আট দিন পরে রিয়া চক্রবর্তীকে তলব করল সিবিআই। সান্টাক্রুজ়ের ডিআরডিও-র গেস্টহাউসে ডেকে পাঠানো হয়েছিল ২৮ বছর বয়সী রিয়াকে। জিজ্ঞাসাবাদ করেন দশ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে। এখানেই গত সপ্তাহ থেকে রয়েছেন সিবিআইয়ের গোয়েন্দারা।

এদিকে সুশান্তের প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তী ও নির্মাতা মহেশ ভাটের রহস্যজনক সম্পর্ক নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা কটাক্ষ চলছে। সম্প্রতি দুজনের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ফাঁস হওয়ায় সে জল্পনায় বাড়তি মাত্রা যোগ করে। এ নিয়ে এতদিন রিয়া কুলুপ আঁটলেও এবার মুখ খুলেছেন।

এক সাক্ষাতকারে তিনি জানিয়েছেন, মহেশ ভাট তার বাবার মতো। রিয়া বলেন, আমি মহেশ ভাট সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি কারণ তিনি আমার বাবার মতো। আমি তাকে এটি বলার জন্য কল করেছিলাম সামনে এগিয়ে যাওয়ার শক্তি আমার নেই।

আরও পড়ুন :  প্রেমিক পাচ্ছেন না পায়েল

সুশান্ত আমাকে চলে যেতে বলে এবং আমি পুরোপুরি ভেঙে পড়েছিলাম। তিনি আমাকে আমার বাবার কথা ভেবে বাড়িতে যেতে বলেন। ভাট সাহেব আমাকে বলেন, এই বয়সে ভেঙে পড়া যাবে না।

এই কথোপকথনই বিকৃতি করা হয়েছে। যার আমার বয়সি একটি মেয়ে আছে, আমি কীভাবে তার প্রেমিকা হই। কারো পরামর্শ নেওয়ার জন্য কি আমি কল করতে পারি না?

‘জালেবি’ সিনেমার সময় থেকেই মহেশ ভাটের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখের রিয়া। তিনি বলেন, সুশান্তের বাড়ি থেকে যেদিন বের হয়ে আসি সেদিনই ভাট সাহেবকে ফোন করেছিলাম। সত্যি বলতে, ভাট সাহেবের সঙ্গে সুশান্তেরও খুব ভালো সম্পর্ক ছিল। আমার আগে থেকেই তার সঙ্গে ভাট সাহেবের পরিচয় ছিল।

আরও পড়ুন ::

Back to top button