রাজনীতি

রাগে ফুঁসছে দিলীপ ঘোষ! হঠাৎ করেই সুব্রতর অব্যহতি জল্পনা তুঙ্গে

রাগে ফুঁসছে দিলীপ ঘোষ! হঠাৎ করেই সুব্রতর অব্যহতি জল্পনা তুঙ্গে

মুকুল রায় তৃণমূল ছেড়ে আসার পর বিজেপিতে সবথেকে বেশি সখ্যতা হয়েছিল কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র সঙ্গেই। এবার যখন তিনি মুখভার করেছিলেন গুরুত্ব না পেয়ে, তখন অমিত শাহের নির্দেশে কৈলাশই মুকুলকে টেনে বের করেছিলেন। সেই কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র এবার ডানা ছেঁটে দেওয়া হল। বিজেপির থিঙ্কট্যাঙ্ক বঙ্গ রাজনীতির ব্যাটন রাখল নিজেদের হাতে।

কৈলাশ বিজয়বর্গীয়কে বাংলা ছেড়ে মধ্যপ্রদেশে বেশি সময় দিতে বলা হয়েছে বিজেপির তরফে। বাংলা তিনি দেখবেন, কিন্তু অগ্রাধিকার দিতে হবে মধ্যপ্রদেশকে। মুকুল রায় বিজেপিতে সক্রিয় হওয়ার পর হঠাৎ করে তাঁর মাথার উপর থেকে কৈলাশকে সরিয়ে বিজেপি কড়া বার্তা দিতে চাইল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একটা বড় অংশ।

একদিকে কৈলাশের ডানা ছেঁটে মুকুলের নিবৃত্ত করা আর অন্যদিকে সুব্রতকে সরিয়ে দিলীপকে বার্তা দিয়ে বিজেপির হাইকম্যান্ড বুঝিয়ে দিল তাঁরা ব্যালান্স করে চলছেন। সামনেই নির্বাচন, তাই দ্বন্দ্ব করলে চলবে না। আর বিজেপি কাউকে অগ্রাধিকার দিচ্ছেও না। সবাইকে সমান চোখে দেখছে। বার্তা দিতে চাইছে, দ্বন্দ্ব ভুলে কাজ করার।

আরও পড়ুন: শোভন-বৈশাখীকে নিয়ে বিজেপি কী ভাবছে! স্পষ্ট করলেন দিলীপ ঘোষ

বিজেপির হাইকম্যান্ড কৈলাশকে বাংলার থেকে তাঁর নিজের রাজ্য মধ্যপ্রদেশে বেশি সময় দিতে বলা হয়েছে। অন্যদিকে, বিজেপির আর এক কেন্দ্রীয় সম্পাদক শিব প্রকাশকে বাংলায় বেশি সময় দিতে বলা হয়েছে। এই যে কৈলাশের পরিবর্তে শিবপ্রকাশকে বাংলায় বেশি সময় দিতে বলা, সেটাই খর্ব করেছে কৈলাশের কর্তৃত্ব।

রাজনৈতিক মহল মনে করছে, কৈলাশের ডানা ছাঁটা মুকুল রায় শিবিরের পক্ষে বড় ধাক্কা। কারণ হিসেবে তাঁদের ব্যাখ্যা, বাংলায় মুকুল-দিলীপ দ্বন্দ্ব মেটাতে না পেরেই দিল্লির কেন্দ্রীয় নেতারা পর পর দুই বড় সিদ্ধান্ত নিয়ে নিল। একইসঙ্গে মুকুল এবং দিলীপকে বার্তা দেওয়া হল।

রাজনৈতিক মহলের আরও একটি ব্যাখ্যা, সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে হঠাৎ করে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়ার পর থেকেই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ রাগে ফুঁসছিলেন। তাঁকে শান্ত করতেই মুকুল রায়ের ঘনিষ্ঠ কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র ডানা ছেঁটে দেওয়া হল। ফলে কারও কিছু বলার থাকবে না।

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button