রাজনীতিরাজ্য

সোমবার কলকাতায় বিজেপির বাইক র‌্যালি, উপস্থিত থাকছেন শোভন-বৈশাখী ও কৈলাস বিজয়বর্গীয়

বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার প্রায় ১৮ মাস পরে সোমবার দলের হয়ে প্রচারে নামছেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। ব্যক্তিগত কারণে আপাতত ভুবনেশ্বরে সফরে থাকা শোভন তাঁর বান্ধবী বৈশাখীকে নিয়ে রবিবার ফিরছেন শহরে। আর পরদিনই সদ্য বিজেপি-র কলকাতা জোনের পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব-পাওয়া শোভন নামছেন বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে।

শুধু বিধানসভা নির্বাচনের প্রচার নয়, কার্যত সোমবারই প্রথমবার বিজেপির হয়ে প্রকাশ্যে দেখা যাবে শোভন-বৈশাখী যুগলকে। সেই দিনটি স্মরণীয় করে রাখতে চায় রাজ্য বিজেপি। ইতিমধ্যেই দলের কলকাতা নেতৃত্বকে বড় মিছিলের আয়োজন করতে বলা হয়েছে। কলকাতা জোনের সহ-আহ্বায়ক তথা রাজ্য যুব বিজেপি-র সহ-সভাপতি শঙ্কুদেব পণ্ডা শনিবার জানিয়েছেন, সোমবার সংবর্ধনাও দেওয়া হবে শোভনকে। শঙ্কু বলেন, ‘‘সোমবার একটা বাইক র‌্যালি হবে কলকাতায়। তাতে নেতৃত্ব দেবেন দলের কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। পরে একটা সমাবেশও হবে।’’

বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, দক্ষিণ কলকাতায় শোভনের এলাকা হিসেবে পরিচিত বেহালাতেও যাওয়ার কথা ওই মিছিলের। শুরু হবে আলিপুর চিড়িয়াখানার কাছ থেকে। সেখানেই দলীয় কর্মী-সমর্থকদের জমায়েতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ থেকে মিছিল আসবে উত্তর কলকাতায় রাজ্য বিজেপি-র সদর দফতরে। ঠিক হয়েছে, ওই দফতর ৬ নম্বর মুরলীধর সেন লেনের কাছে একটি সমাবেশ হবে। সেখানেই সংবর্ধনা দেওয়া হবে শোভন-বৈশাখীকে। সে দিন কলকাতা ও আশপাশের এলাকার শোভনের কয়েকজন অনুগামী বিজেপি-তে যোগ দিতে পারেন বলেও দাবি গেরুয়া শিবিরের।

আরও পড়ুন : ক্ষমতায় এলে সিঙ্গুরে শিল্প প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি মুকুল রায়ের

গত ২৭ ডিসেম্বর রাজ্য বিজেপি-র কলকাতা জোনের পর্যবেক্ষক হিসেবে শোভনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। সেই কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে দেবজিৎ সরকারকে। সহ-আহ্বায়ক করা হয়েছে বৈশাখী ও শঙ্কুদেবকে। আর সকলের উপর রয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতা সুনীল বনসল। নরেন্দ্র মোদী- অমিত শাহর আস্থাভাজন নেতা সুনীল উত্তরপ্রদেশ বিজেপি-র সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন)। কিন্তু আপাতত তিনি পশ্চিমবঙ্গে কলকাতা জোনের দায়িত্বে। এই জোনে রয়েছে কলকাতা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার সব বিধানসভা।

রবিবার কলকাতায় ফিরে সোমবার থেকেই তাঁরা কাজ শুরু করে দেবেন বলে জানিয়েছিলেন বৈশাখী। সেই সঙ্গে তিনি বলেছিলেন, ‘‘তৃণমূলের বহু পুরনো কর্মী, যাঁরা বসে গিয়েছেন, তাঁরা শোভনবাবুর দায়িত্ব ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে চাঙ্গা হয়ে উঠেছেন। তাঁরা যোগাযোগও শুরু করেছেন। মালদহ থেকে কাকদ্বীপ— অনেকেই যোগাযোগ করছেন।’’

আরও পড়ুন : ‘ভাইপো মানে অভিষেক’,নাম করেই আক্রমণ লকেটের

সেই যোগদান সোমবার থেকেই শুরু হবে কি না সে ব্যাপারে অবশ্য কিছু জানাননি বৈশাখী। তবে সবকিছু পরিকল্পনা মতো চললে সোমবারই প্রথম কলকাতার রাস্তায় নতুন দলের প্রচারে নামতে দেখা যাবে শোভন-বৈশাখীকে। যদিও রাজ্য বিজেপি-র একটি অংশ মিছিলের জন্য প্রশাসনিক অনুমতি পাওয়া নিয়ে খানিকটা উদ্বেগে রয়েছে। ওই নেতাদের আশা, পুলিশ তাঁদের অত লম্বা মিছিলের অনুমতি না-ও দিতে পারে। তবে বিজেপি-র অন্য একাংশের দাবি, প্রয়োজনীয় অনুমতি পেতে অসুবিধা হবে।

সুত্র : আনন্দবাজার

আরও পড়ুন ::

Back to top button