জানা-অজানা

মহাকাশচারীরা কীভাবে চুলে শ্যাম্পু করেন



শূন্যে ভাসার মজাই আলাদা। ধরুন মাধ্যাকর্ষণের সীমা ছাড়িয়ে আপনি মহাকাশে গেলেই ভেসে বেড়াচ্ছেন। এখন ঐ চাঁদের মাটিতে লাফিয়ে লাফিয়ে চলচ্ছেন। ঠিক এই দৃশ্য মহাকাশে না যেয়ে ও অনেক বার দেখেছেন। নাওয়া-খাওয়া বাদ দিয়ে কত দিন ভালো লাগবে আকাশে ভেসে বেড়াতে! আপনি এই পৃথিবীর বুকে যে কাজগুলো খুব সহজে করতে পারছেন, সেটা মহাকাশে ভেসে ভেসে করা ভয়ানক কঠিন।

তবে সুপারহিরোর মত কে না চায় শূন্যে ভাসতে? কিন্তু ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে যারা কাজ করেন তাদের পৃথিবীর অনেক সহজ কাজও মহাকাশে সেই কাজগুলো করা অনেক কঠিন হয়ে পড়ে। তবে মহাকাশে যারা থাকেন তারাও এই কঠিন কাজকে সহজ করার জন্য কিছু পদ্ধতিও আবিষ্কার করেছেন।

সম্প্রতি নাসার এক মহাকাশচারী ক্যারেন নাইবার্গ নিজের মাথার চুলে শ্যাম্পু করার যে ভিডিও দিয়েছেন তা দেখে অনেকেরই চোখ কপালে উঠে গিয়েছে। এত কঠিন কাজ এই শ্যাম্পু করা? পৃথিবীতে বসে সেটা ভাবাই যায় না।

আরও পড়ুন : নারীর অজান্তে যে কারণে গর্ভপাত ঘটে

তবে আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে ক্যারেনের মাথায় শ্যাম্পু দেওয়ার এই ভিডিওটি বেশ পুরনো, তবু কেউ আবার সেটি নতুন করে রেডিটে শেয়ার করেছেন। শ্যাম্পু করার শুরুতেই মাথায় জল দিচ্ছেন ক্যারেন। আর মাধ্যাকর্ষণের অভাবে সেই জল এ-দিক ও-দিক ছিটকে চলে যাচ্ছে। ক্যারেন প্রাণপণ চেষ্টা করে সেই জলকণাকে আবার ধরে নিয়ে আসছেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে স্পেসে কিন্তু জল একটি মহার্ঘ্য বস্তু, একজন মহাকাশচারী স্পেসে জল নিয়ে যাওয়ার অনুমতি পান ঠিকই কিন্তু ব্যবহার করতে হয় অনেক বুঝে-শুনে। কারণ এখানে কোনও কিছুই নষ্ট করা যায় না। স্পেসে সব কিছুই রিসাইকেল হয়। তাই যে জল মাথায় ছিটোলেন ক্যারেন, সেটি বাষ্পীভূত হয়ে যাবে এবং এয়ার কন্ডিশন সিস্টেম সেটি শুষে নিয়ে সেটাকে ঘনীভূত করবে। ওই ঘনীভূত জলকণা পুনরায় পানীয় জল হিসেবে ব্যবহৃত হবে।

মাথায় জল ছিটিয়ে ক্যারেন ‘নো রিন্স’ শ্যাম্পু দিচ্ছেন, তার পর তোয়ালে দিয়ে ঘষে ঘষে সেটাকে ছড়িয়ে দিচ্ছেন সারা চুলে। ‘নো রিন্স’ শ্যাম্পু কেন ব্যবহার হচ্ছে সেটা তো বোঝাই যাচ্ছে। কারণ এই জাতীয় শ্যাম্পু মাথায় দিলে জল দিতে হয় না। তোয়ালে দিয়ে ঘষেই তাঁর মাথার ময়লা উঠে আসছে কোন প্রকার জলের ব্যবহার ছাড়াই।

ভিডিওটি দেখার পর অনেকেই কৌতূহলী হয়ে জানতে চেয়েছেন স্পেসে জামাকাপড় কী ভাবে ধোয়া হয়? তবে এভাবে জল বাঁচিয়ে মাথা ধোওয়ার পর স্পেস থেকে ফিরে স্নান করার একটা আলাদা অনুভূতি আছে, এই মন্তব্যও দেখা গিয়েছে ভিডিওর নিচে।তবে আপনি চাইলেই মহাকাশে অঢেল জিনিসপত্র পাবেন না।



Related Articles

Back to top button